• ৯ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ৫ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

বিশ্বকাপ এবং চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আয়োজক হতে চায় বাংলাদেশ

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত জুন ১৫, ২০২১
বিশ্বকাপ এবং চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আয়োজক হতে চায় বাংলাদেশ
Spread the love

২০১১ বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ছিল যৌথ আয়োজক। ভারত এবং শ্রীলঙ্কার সঙ্গে মিলে বিশ্বকাপের আয়োজন করেছিল বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড। এরপর ২০১৪ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ আয়োজন করে এককভাবে। মাঝে এশিয়া কাপের আয়োজকও হয়েছিল বাংলাদেশ।

আগামীতেও বাংলাদেশ বিশ্বকাপ এবং চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আয়োজক হতে চায়। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পরিচালনা পর্ষদের সভায় আজ এ বিষয়ে আলোচনা হয়েছে। সভা শেষে বিসিবি সভাপতি মিডিয়ার সামনে মুখোমুখি হয়ে যে বক্তব্য দিয়েছেন, সেখানেই জানিয়েছে, বিশ্বকাপ এবং চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির আয়োজক হওয়ার ইচ্ছার কথা।

তবে বিশ্বকাপ এককভাবে আয়োজন করা যাবে না বলেও জানিয়ে দিয়েছেন তিনি। কারণ, একটি বিশ্বকাপ আয়োজন করতে ভেন্যু লাগে অনেক। বাংলাদেশের এত ভেন্যু নেই। এ কারণে যৌথভাবে বিশ্বকাপের আয়োজক হতে চায় বিসিবি। তবে যেহেতু চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে কম ভেন্যু লাগে, সে জন্য এই টুর্নামেন্টের জন্য এককভাবে বিড করবে বলেও জানান বিসিবি সভাপতি।

তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপ মেনস ইভেন্টের জন্য ১০টা ভেন্যু থাকতে হবে। সেটা এখন বাংলাদেশের জন্য কঠিন। চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে কম ভেন্যু লাগে। তাই এখানে আলাদাভাবে বিড করা যাবে। বিশ্বকাপ জয়েন্টলি বিড করবো। এশিয়ার অন্য দেশগুলোর সঙ্গে মিলে আমরা একসঙ্গে বিড করবো।’

পূর্বাচলে বিসিবির নিজস্ব অর্থায়নে স্টেডিয়াম নির্মাণ করার কথা শোনা গিয়েছিল অনেক আগে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নামে নির্মিতব্য সেই স্টেডিয়ামের সর্বশেষ আপডেট কী? জানাতে গিয়ে বিসিবি সভাপতি বলেন, ‘শেখ হাসিনা স্টেডিয়ামের তৈরির জন্য প্রস্তাব এসেছে। একটা পরামর্শক ছিল, বিদেশী কোম্পানি। তারা এগিয়ে এসেও পারেনি কোভিডের কারণে। তাই দ্বিতীয় পরামর্শক পার্টি যারা এ জাতীয় কাজ করে থাকে তাদের অনুমতি দিচ্ছি স্টেডিয়াম নিয়ে এগোনোর।’

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।