• ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৪শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

আবু ত্ব-হার পক্ষে লড়বেন ব্যারিস্টার সুমন

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত জুন ১৭, ২০২১
আবু ত্ব-হার পক্ষে লড়বেন ব্যারিস্টার সুমন

নিখোঁজ ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মোহাম্মদ আদনানকে খুঁজে বের করতে আইনি সহায়তা দেবেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।  তিনি বলেন, ত্ব-হার পরিবার চাইলে তাকে খুঁজে বের করতে হাইকোর্টে ‘হেবিয়াস কর্পাস’ রিট মামলা করতে চাই।

বুধবার ফেসবুক লাইভে এসে তিনি এ ঘোষণা দেন।

সুমন বলেন, এক সপ্তাহ ধরে নিখোঁজ ত্ব-হাকে  খুঁজে বের করার দায়িত্ব সরকারের।  সরকারের কাছে দাবি, তাকে খুঁজে বের করুন।  এমনও হতে পারে সে নিজেও গুম হয়ে থাকতে পারে।  অথবা কোনো বাহিনীর কাছে সে থাকতে পারে।  যেখানেই থাকুক সরকারের উচিত ন্যায়বিচারের স্বার্থে আবু ত্ব-হাকে খুঁজে বের করা।  আমি বলতে চাই, আমাদের দেশে আইন-আদালত আছে।  সেখানে ত্ব-হার সন্ধানে হেবিয়াস কর্পাস (ব্যক্তিকে হাজির করতে রিট) রিট করতে পারি।

ব্যারিস্টার সুমন বলেন, আবু ত্ব-হার পরিবার চাইলে এ বিষয়ে আমি আইনি সহায়তা দেব।  তারা যদি আসেন আমি হাইকোর্টে এই রিট মামলা করতে চাই।  আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কাছে যদি আবু ত্ব-হা থাকেন তাহলে হাইকোর্টের আদেশে অবশ্যই তাকে সামনে আনতে বাধ্য হবেন।

সুমন আরও বলেন, পরিশেষে আমি বলতে চাই আবু ত্ব-হাসহ চারজন নিখোঁজ আছেন।  এখানে হারানো বিষয় না।  বিষয় হচ্ছে, মানুষের মনে যদি এটা আসে এখানে গুম হয়ে গেলে আর বের হয় না মানুষ, তাহলে এটা ন্যায় বিচারের পরিপন্থী হবে।

১০ জুন রংপুর থেকে ঢাকায় আসার পথে রাজধানীর গাবতলী এলাকা থেকে ইসলামী বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনান নিখোঁজ হন।  তার দুই সহযোগীও একই দিন থেকে নিখোঁজ রয়েছেন।  নিখোঁজ হওয়ার পর তার স্ত্রী ও মা রংপুর ও ঢাকায় এ বিষয়ে পুলিশকে লিখিত অভিযোগ করেন।

এদিকে স্বামীকে ফিরে পেতে আবু ত্ব-হার স্ত্রী সাবেকুন নাহার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে খোলা চিঠি দিয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।