• ৯ই ডিসেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ৫ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

বাইডেনের সঙ্গে এরদোয়ানের বৈঠকে দোভাষী ছিলেন যে তরুণী

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত জুন ১৮, ২০২১
বাইডেনের সঙ্গে এরদোয়ানের বৈঠকে দোভাষী ছিলেন যে তরুণী
Spread the love

তুরস্কের রাষ্ট্রপতি রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ানের দোভাষী হিসেবে কাজ করে তুমুল সাড়া জাগিয়েছেন একজন তরুণী।

সম্প্রতি ন্যাটোর শীর্ষ সম্মেলন চলাকালে ব্রাসেলসে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের সঙ্গে এরদোয়ানের বৈঠকেও দোভাষীর ভূমিকা পালন করে এই ফিলিস্তিনি তরুণী।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ওই হিজাবি তরুণীর পরিচয় নিয়ে নানা ধরনের প্রশ্ন চলছে সবার মনে। তুরস্কভিত্তিক সংবাদ মাধ্যমের তথ্যমতে দোভাষীর দায়িত্ব পালন করা হিজাবি তরুণী ছিলেন ফাতেমা কাওকজি। তিনি তুরস্কের প্রথম হিজাবি সংসদ সদস্য মারওয়া কাওকজির মেয়ে। আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিষয়ে উচ্চশিক্ষা সম্পন্ন করে ফাতেমা বিশ্ব নেতৃবৃন্দের সঙ্গে এরদোয়ান বৈঠকে দোভাষীর ভূমিকা পালন করেন।

 

তুরস্কের টোয়েন্টিফোর টিভির উপস্থাপক এরিন সেন্টুক এক টুইট বার্তায় লেখেন, ‘ফাতেমা, যিনি তুরস্কের প্রেসিডেন্টের দোভাষী হয়ে তার পাশে বসে আছেন। এই বৈঠক নতুন নয়। বরং তিনি এই পদে দীর্ঘদিন যাবৎ কাজ করছেন। যারা তার সম্পর্কে জানে না তাদের বলব, এই তরুণী বিদেশি ভাষায় পারদর্শী। কূটনৈতিক বিষয়ে অগাধ জ্ঞান রাখেন। এসব বিষয়ে তার যথেষ্ট জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা আছে।’

ফাতেমা কাওকজি ফিলিস্তিন বংশোদ্ভূত একজন মুসলিম তরুণী। ১৯৯৯ সালে তার মা মারওয়া প্রথম হিজাবি নারী এমপি হিসেবে সংসদে প্রবেশ করেন। তৎকালীন প্রেসিডেন্ট নাজমুদ্দিন এরবাকানের নেতৃত্বে দ্য ভার্চু পার্টি থেকে তিনি নির্বাচিত হয়েছিলেন।

কিন্তু তুরস্কের রাষ্ট্রপতি সলেমান ডেমিরেল ফিলিস্তিনি বংশোদ্ভূত এই নারীর সংসদ পদ ও তুরস্কের নাগরিকত্ব কেড়ে নেন। শুধু তাই নয়, ধর্মনিরপেক্ষতার মূলনীতি লঙ্ঘন করে হিজাব পরে সংসদে প্রবেশ করার অভিযোগে তার তুরস্ক ত্যাগে বাধ্য করা হয়। পরবর্তীতে মারওয়াসহ দলটির পাঁচ সদস্যকে পাঁচ বছরের জন্য রাজনীতিতে নিষিদ্ধ করে আইন করা হয়।

এরপর থেকে মারওয়া যুক্তরাষ্ট্রে নির্বাসনের জীবন শুরু করেন। অতঃপর ২০১৭ সালে আইন পরিবর্তন হলে মারওয়া পুনরায় তুর্কি নাগরিকত্ব গ্রহণ করেন। এরপর থেকে পুনরায় তুরস্কের সরকারি দায়িত্ব পালন শুরু করেন। বর্তমানে তিনি মালয়েশিয়ায় তুরস্কের রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। তাঁর বোন রাওজা কাওকজি বর্তমানে একে পার্টির সংসদ সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

মারওয়ার বড় মেয়ে মারয়াম কাওকজি তুরস্কের প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। আর অপর মেয়ে ফাতেমা কাওকজি তুর্কি প্রেসিডেন্সিতে আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞ হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। পাশাপাশি তিনি এরদোয়ানের বিভিন্ন বৈঠকে দোভাষীর ভূমিকা পালন করছেন।

এর আগে ফাতেমা কাওকজি যুক্তরাষ্ট্রে পড়াশোনাকালে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানে গবেষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। বেকি রিফুউটেশন অর্গানাইজেশন ফর রিলিজিয়াস ফ্রিডম, দ্য উডরো উইলসন ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর স্কলার্স ও যুক্তরাষ্ট্রের কংগ্রেসে কাজের দীর্ঘ অভিজ্ঞতা রয়েছে তার। সূত্র: আল-জাজিরা

 

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।