• ৩রা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১৯শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৪শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

সিলেটে ২য় ধাপের টিকা দান শুরু, যারা পাবেন

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত জুন ১৯, ২০২১
সিলেটে ২য় ধাপের টিকা দান শুরু, যারা পাবেন

সিলেটে ‘সাইনোফার্ম কোভিড-১৯ টিকা’ দান কর্মসূচী শুরু হয়েছে। সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের একমাত্র টিকা কেন্দ্র সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ২য় ধাপের টিকা প্রদান শুরু হয়েছে।

শনিবার (১৯ জুন) সকালে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের টিকা প্রদানের মাধ্যমে এ কর্মসূচি শুরু হয়। সাইনোফার্ম কোভিড-১৯ টিকা কেন্দ্র পরির্দশন করেন সিলেট সিটি করপোরেশেনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

সিলেট সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মো. জাহিদুল ইসলাম জানান, প্রথমদিন ওসমানী মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া হয়েছে। সিলেট সিটি করপোরেশনে একমাত্র টিকা কেন্দ্র সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুটি বুথে টিকা প্রদান করা হবে। টিকা কেন্দ্র শুক্রবার ও সরকারী ছুটি ব্যতিত প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে বিকেল ৩ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

প্রত্যেকটি বুথে ২জন করে ভ্যাক্সিনেটর ও ৩ জন স্বেচ্ছাসেবক দায়িত্ব পালন করবে। কেন্দ্রে একটি মেডিকেল টিম থাকবে, সার্বক্ষনিক কেন্দ্রের ফোকাল পয়েন্ট টিকাদান কার্যক্রম তদারকি করবেন।

টিকা কর্মসূচীর নির্দেশনায় বলা হয়েছে, প্রথম ডোজ নেয়ার ২৮ দিন পর ২য় ডোজ প্রদান করতে হবে। কেন্দ্র পরিবর্তন করে ভ্যাকসিন প্রদান করা যাবে না। এবং পূর্বে অন্য কোন কোভিড ভ্যাকসিন গ্রহন করেছেন এমন কাউকে এই ভ্যাকসিন প্রদান করা যাবে না এবং অনিবন্ধিত কোন ব্যক্তি এই ভ্যাকসিন নিতে পারবেন না।

এছাড়া অন্য কোন দেশ থেকে টিকার ১ম ডোজ নিয়ে আসা কোন ব্যক্তিকে ২য় ডোজ দেয়া যাবে না।

সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী যারা ২য় ধাপের এই ভ্যাকসিন কর্মসূচীতে টিকা নিতে পারবেন তারা হলেন- কোভিড-১৭ ভ্যাকসিনের জন্য উল্লেখিত নির্ধারিত কেন্দ্রে ইতিমধ্যে যেসকল ব্যক্তি রেজিস্ট্রেশন করেছেন কিন্তু এখনো পর্য্ন্ত কোন ভ্যাকসিন পাননি তাদেরকে এই ভ্যাকসিন দেয়া হবে। অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত সরকারী স্বাস্থ্যকর্মী ও পুলিশ সদস্যবৃন্দ যারা আগে ভ্যাকসিন গ্রহন করেননি, অগ্রাধিকারপ্রাপ্ত বিদেশগামী বাংলাদেশি অভিবাসিকর্মী যারা জনশক্তি উন্নয়ন ব্যুরো কতৃক অনুমোদিত, সরকারী ও বেসরকারী মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজের শিক্ষার্থীগণ, সরকারী নার্সিং ও মিডওয়াইফারি, সরকারী ম্যাটস এবং আইএইচটি এর শিক্ষার্থীগণ, সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়ের আবাসিক হলের শিক্ষার্থীগণ, বিডা- এর আওতাধিন ও অন্যান্য জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ উন্নয়নমূলক সরকরী প্রকল্প কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত কর্মকর্তা কর্মচারীগণ, মরদেহ সৎকার কাজে নিয়োজিত কর্মী যারা পূর্বে কোন ভ্যাকসিন গ্রহন করেননি এবং বাংলাদেশে বসবাসরত চীনা নাগরিকবৃন্দকে এই টিকা দেয়া হবে।

সরকারী নির্দেশনা অনুযায়ী যারা ২য় ধাপের এই ভ্যাকসিন কর্মসূচীতে টিকা নিতে পারবে না তারা হলেন- অনুর্ধ্ব ১৮ বছর বয়সী জনগোষ্ঠি, গর্ভবতি ও স্তন্যদানকারী মায়েরা, ভ্যাকসিন গ্রহনের সময় জ্বর আক্রান্ত বা অসুস্থ্ কোন ব্যক্তি, যাদের ভ্যাকসিনজনিত এলার্জির ইতিহাস রয়েছে, ১ম ডোজ টিকা গ্রহনের পর মারাত্মক পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হলে তাদেরকে এই ভ্যাকসিন প্রদান করা যাবে না। এছাড়া অনিয়ন্ত্রিত দীর্ঘ মেয়াদী রোগ যেমন- ডায়বেটিস, উচ্চরক্তচাপ, হৃদরোগ, স্ট্রোক, যক্ষা, এজমা/শ্বাস কষ্ট, কিডনী রোগ, ক্যান্সার আক্রান্ত, ডায়ালাইসিস নিচ্ছেন এমন ব্যক্তি এবং স্বল্প রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার জনগোষ্টির ক্ষেত্রে সাইনোফার্মা ভ্যাকসিন প্রদানে রেজিস্ট্রার্ড চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নিতে সরকারী নির্দেশনায় বলা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, কোভিড-১৯ টিকার প্রথম ধাপে সিলেট সিটি করপোরেশনে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও সিলেট পুলিশ লাইন্স দুটি কেন্দ্রে টিকা দান করা হয়েছিল। কিন্তু ২য় ধাপের এই টিকা কর্মসূচীতে শুধুমাত্র সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল কেন্দ্রে টিকা দেয়া হবে। তবে যারা পূর্বে সিলেট পুলিশ লাইন্স কেন্দ্র দিয়ে নিবন্ধন করেছিলেন তারা এই কেন্দ্রে টিকা গ্রহন করতে পারবেন।

 

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।