• ৪ঠা আগস্ট, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ২০শে শ্রাবণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৫শে জিলহজ, ১৪৪২ হিজরি

গৃহকর্মীই স্কুল শিক্ষিকাকে খুন করেছে ধারণা পুলিশের

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত জুন ২০, ২০২১
গৃহকর্মীই স্কুল শিক্ষিকাকে খুন করেছে ধারণা পুলিশের

সিলেটের ওসমানী নগরে ঘরের ভেতরে খুন হওয়া স্কুল শিক্ষিকা তপতী রানী দে (৬০) কে তার বাসার গৃহকর্মী গৌরাঙ্গ বৈদ্যই খুন করেছেন বলে ধারণা পুলিশের। গৃহকর্তীকে গলাকেটে হত্যার পর গৌরাঙ্গ নিজে ফাঁস লেগে আত্মহত্যা করেন, এমনটি মনে করছে পুলিশ।

শনিবার মধ্যরাতে ওসমানীনগর উপজেলার দয়ামীর ইউনিয়নের সোয়ারগাঁও এলাকার নিজ বাড়ির বদ্ধ ঘর থেকে শিক্ষিকা তপতীর গলাকাটা ও গৃহকর্মী গৌরাঙ্গ বৈদ্যের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

রোববার দুপুর পর্যন্ত মরদেহগুলোর ময়না তদন্ত সম্পন্ন হয়নি। মামলাও হয়নি। তবে পুলিশ বলছে, ময়না তদন্ত ও মামলার প্রস্তুতি চলছে। ওই ঘর থেকে আলামত হিসেবে রক্তমাখা একটি দা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

তপতী রানী দে সোয়াইরগাও প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা। তার স্বামী বিজয় দে পেশায় চিকিৎসক। তাদের দুই ছেলেমেয়েও চিকিৎসক।

রোববার দুপুরে সিলেটের পুলিশ সুপার (এসপি) মোহাম্মদ ফরিদ উদ্দিন বলেন, আমরা ধারণা করছি শিক্ষিকাকে বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে নিজে গলায় গামছা পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে ঐ গৃহকর্মী।

তিনি বলেন, তপতী রানী যে বাড়িতে থাকতেন সেই বাড়ির নিরাপত্তা ব্যাবস্থা খুবই শক্ত। ভেতর থেকে সকল দরজা ও ফটক তালা দেওয়াই ছিলো। ফলে বাইরে থেকে কেউ ভেতরে প্রবেশের কোনো আলামত পাইনি। ক্ষোভের বশে গৌরাঙ্গই তপতী রানীকে হত্যা করতে পারে। আপাতত এই ধারণা থেকেই তদন্ত এগোচ্ছি। তবে তদন্ত শেষে বিস্তারিত বলা যাবে।

একই ধরণের ধারণার কথা জানিয়েছেন তপতী রানীর চিকিৎসক ছেলে বিপ্লব দেও। ছেলে ও স্বামীর সাথে সেয়ারগাওয়ের ওই বাড়িতে থাকতেন তপতী। মেয়ের বিয়ে হয়েছে সিলেট শহরে।

বিপ্লব বলেন, গৌরাঙ্গ অনেকদিন ধরেই আমাদের বাসায় মায়ের কাজের সহযোগি হিসেবে আছেন। কিছুদিন ধরেই সে খিটখিটে মেজাজে অস্বাভাবিক আচরণ করতো। তুচ্ছ বিষয়েই ঝগড়া জুড়ে দিতো।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিকেলে প্রাইভেট প্র্যাকটিসে গিয়েছিলেন তপতীর স্বামী ও ছেলে। ঘরে তপতী ও গৌরাঙ্গ ছিলেন। রাত ১১টার দিকে এক প্রতিবেশি বাথরুমের জানালা দিয়ে গৌরাঙ্গর ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান। এসময় তপতীর স্বামী বিজয় দেও বাড়ি ফিরে একই দৃশ্য দেখে পুলিশকে খবর দেন। পুলিশ গিয়ে দরজা ভেঙে মেঝে থেকে তপতীর গলাকাটা ও গৌরাঙ্গর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করে।

ওসমানীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল বণিক বলেন, এই ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি। তবে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

তিনি বলেন, পুলিশ কিছু ধারণা নিয়ে কাজ করছে। তবে এখনও এই হত্যাকাণ্ডের কোনো ক্লু পায়নি।

ঘটনাস্থল থেকে একটি রক্তাক্ত বটি আলামত হিসেবে জব্দ করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।