• ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কার ঘটনায় মাস্টার বরখাস্ত, তদন্ত কমিটি গঠন

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত জুলাই ২৩, ২০২১
পদ্মা সেতুর পিলারে ফেরির ধাক্কার ঘটনায় মাস্টার বরখাস্ত, তদন্ত কমিটি গঠন

পদ্মা সেতুর ১৭ নম্বর পিলারে ধাক্কা দেওয়ার ঘটনায় মুন্সিগঞ্জের শিমুলিয়া-মাদারীপুরের বাংলাবাজার নৌ রুটে চলাচলরত ফেরি শাহ জালালের মাস্টার আব্দুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে।

শুক্রবার (২৩ জুলাই) বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন করপোরেশনের (বিআইডব্লিউটিসি) এক বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়। এছাড়া এই ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বিআইডব্লিউটিসির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, শিমুলিয়া-বাংলাবাজার রুটে চলাচলরত ফেরি শাহজালাল সঠিকভাবে পরিচালনায় ব্যর্থ হওয়ায় ফেরির ইনচার্জ ইনল্যান্ড মাস্টার অফিসার আব্দুর রহমানকে সাময়িকভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে।

এর আগে শুক্রবার সকাল পৌনে ১০টার দিকে পদ্মা সেতুর ১৭ নম্বর পিলারের সঙ্গে ধাক্কা লেগে রো রো ফেরি শাহজালাল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এ সময় ফেরির অন্তত ২০ যাত্রী আহত হয়েছেন।

ওই ফেরিতে থাকা যাত্রীরা জানান, মাদারীপুরের বাংলাবাজার ঘাট থেকে মুন্সীগঞ্জের শিমুলিয়া ঘাটে আসার পথে মূল পদ্মায় প্রবেশ করার পর ফেরির মাস্টার নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফেলেন। এ সময় ফেরিটির পদ্মাসেতুর ১৭ নম্বর পিলারের সঙ্গে সজোরে ধাক্কা লাগে।

কয়েকজন যাত্রী জানান, ঘটনার আকস্মিকতায় যাত্রীদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে। অনেকের হাত, পা ও বুকে আঘাত লেগেছে। কেউ কেউ রক্তাক্ত হন।

বিআইডব্লিউটিসির শিমুলিয়া ঘাটের সহকারী ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) ফয়সাল আহমেদ জানান, সকালে ফেরি শাহজালাল নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে পদ্মা সেতুর ১৭ নম্বর পিলারের সঙ্গে ধাক্কা খায়। তবে চালক দ্রুত ফেরিটি নিয়ন্ত্রণে নিতে পারায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটেনি। এতে ফেরিটি সামান্য ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এছাড়া কয়েকজন যাত্রী সামান্য আহত হয়েছেন। ফেরিটি শিমুলিয়া ঘাটে নোঙরের পর আহত হওয়া যাত্রীরা নিজ নিজ গন্তব্যে চলে যান। তবে পায়ে ব্যথা পাওয়ায় এক যাত্রীকে খুঁড়িয়ে হাঁটতে দেখে গেছে।

পদ্মা সেতুর নির্বাহী প্রকৌশলী (মূল সেতু) দেওয়ান মো. আব্দুল কাদের জানান, পদ্মা সেতুর পিলারের সঙ্গে রো রো ফেরির ধাক্কা লেগেছে। তবে এতে সেতুর পিলারের কোনো ক্ষতি হয়নি।

তিনি আরও জানান, ১০০ টন ওজনের বিশাল জাহাজ ধাক্কা দিলেও পিলারের কিছু হবে না- এমনভাবেই পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হয়েছে। এরপরও ঘটনাস্থলে একটি টিম পাঠানো হয়েছে।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।