• ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৯শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি

বোন পালিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে মাকে কুপিয়ে ভাইয়ের বিষপান

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত আগস্ট ৬, ২০২১
বোন পালিয়ে যাওয়াকে কেন্দ্র করে মাকে কুপিয়ে ভাইয়ের বিষপান

সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে প্রেমিকের হাত ধরে বোনের পালিয়ে যাবার ঘটনার জের ধরে মাকে কুপিয়ে রক্তাক্ত করার পরদিন বিষপানে শাহানুর মিয়া(২০) নামে এক যুবকের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে। ঘটনার একদিন পর বিষয়টি জানাজানি হলে এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় দিরাই উপজেলার তাড়ল ইউনিয়নের উজান ধল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শাহানুর মিয়া গ্রামের আলিম উদ্দিনের ছেলে।

গ্রামের লোক ও নিহত শাহানুর মিয়ার স্বজনরা জানান, উজান ধল গ্রামের আলিম উদ্দিনের ৮ ছেলের মধ্যে দ্বিতীয় ছেলে শাহানুর মিয়া। সাজনা বেগম (১৮), আমিনা বেগম (৬) নামে দুই মেয়েও রয়েছে আলিম উদ্দিনের।

আদরের ছোট বোন সাজনা বেগমের জন্য পার্শ্ববর্তী জগন্নাথপুর উপজেলার চিলাউড়া গ্রামে পাত্র ঠিক করে শুক্রবার (৬ আগস্ট) বিয়ের দিন ধার্য্য করে শাহানুর। বিয়ের প্রস্তুতি চলাকালে গত রবিবার গোপনে প্রেমিকের হাত ধরে পালিয়ে যায় সাজনা বেগম। পরদিন সোমবার এ নিয়ে পারিবারিক কলহের জেরে শাহানুর তার মা খোদেজা বেগমকে (৫০) কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে বাড়ি থেকে চলে যায়। পরিবারের লোকেরা গুরুতর আহত খোদেজা বেগমকে দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। তিনি সেখানে চিকিৎসাধীন। এই ঘটনার পরের দিন মঙ্গলবার বাড়ি ফিরে আসে শাহানুর।

পরিবারের লোকেরা জানান, বাড়িতে আসার পর শাহানুরকে হতাশ দেখাচ্ছিল। সন্ধ্যার পরপর সে সবার অজান্তে বিষপান করে।

তৎক্ষনাৎ শাহানুর মিয়াকে দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে পরিবারের লোকেরা। দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কর্তব্যরত চিকিৎসক শাহানুর মিয়াকে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরন করলে সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ১১ টার দিকে মৃত্যুবরণ করে সে।

দিরাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স সূত্র জানায়, গত মঙ্গলবার রাত সোয়া আটটায় বিষপানে আহত শাহানুর মিয়াকে জরুরি বিভাগে নিয়ে আসা হয়। তার শারিরীক অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে সুনামগঞ্জ সদর হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। এর আগের দিন শাহানুরের মা খোদেজা বেগম ধারালো অস্ত্রের জখম নিয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নেওয়ার বিষয়টিও নিশ্চিত করেছে সূত্র।

দিরাই থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আজিজুর রহমান ঘটনার বিষয় অবগত আছেন জানিয়ে বলেন, শাহানুর মিয়ার ময়নাতদন্তের কাজ সুনামগঞ্জ সদর থানা সম্পন্ন করেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।