• ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৯শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি

কাউন্টারে ট্রেনের টিকিট বিক্রি সোমবার শুরু

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত আগস্ট ৮, ২০২১
কাউন্টারে ট্রেনের টিকিট বিক্রি সোমবার শুরু

সরকার বিধিনিষেধ শিথিল করায় সোমবার (৯ আগস্ট) থেকে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন রেলস্টেশনে ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু হচ্ছে।সরাসরি কাউন্টার থেকে টিকিট ক্রয় করতে হবে।এদিন সকাল ৮টা থেকে কাউন্টার খুলবে।

রোববার বিকালে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে বিধিনিষেধ শিথিল সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি করে বলা হয়, গত ৩ আগস্ট অনুষ্ঠিত কোভিড-১৯ সংক্রমণের পরিস্থিতি পর্যালোচনা সংক্রান্ত আন্তঃমন্ত্রণালয় সভার সিদ্ধান্ত, দেশের আর্থ-সামাজিক কর্মকাণ্ড সচল রাখা এবং সামগ্রিক পরিস্থিতি বিবেচনায় আগামী ১১ আগস্ট থেকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত নিচের শর্তাবলী সংযুক্ত করে সার্বিক কার্যাবলী/চলাচলে বিধিনিষেধ আরোপ করা হলো।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, সড়ক রেল ও নৌ-পথে আসন সংখ্যার সমপরিমাণ যাত্রী নিয়ে গণপরিবহণ/যানবাহন চলাচল করতে পারবে।

ইতোমধ্যে আগামী বুধবার থেকে ট্রেন চালুর প্রস্তুতি নিয়েছে রেলওয়ে। এবার আর অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে নয়, আসন পূর্ণ করেই সব ট্রেন চলবে বলে প্রজ্ঞাপনে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এর আগে পবিত্র ঈদুল আজহা উপলক্ষে ১৫ থেকে ২৩ জুলাই সকাল ছয়টা পর্যন্ত বিধিনিষেধ শিথিলের সময় ৫৭ জোড়া ট্রেন চলাচল করে।তখন অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে সব টিকিট অনলাইনে বিক্রি করা হয়েছে। কাউন্টারে কোনো টিকিট বিক্রি করা হয়নি। গত বছরের ৮ মার্চ দেশে করোনা সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর থেকে যতবারই শিথিল করা হয়েছে, তখন গণপরিবহণ চালু করা হয় অর্ধেক আসন ফাঁকা রেখে।কিন্তু এবার শতভাগ যাত্রী নিয়েই ট্রেনসহ গণপরিবহণ চালুর সিদ্ধান্ত দিয়েছে সরকার।

এদিকে সরকার ১১ আগস্ট থেকে বিধিনিষেধ শিথিল করায় সেদিন থেকে বাংলাদেশ রেলওয়ে ৩৮ জোড়া আন্তঃনগর ট্রেন এবং ২০ জোড়া মেইল ও কমিউটার ট্রেন চালানোর প্রস্তুতি নিয়েছে।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, আন্তঃনগর ট্রেনের মোট আসনের অর্ধেক টিকিট অনলাইন ও মোবাইল অ্যাপে বিক্রি করা হবে। অবশিষ্ট অর্ধেক টিকিট কাউন্টার থেকে সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিক্রি করা হবে।

রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) শাহাদাত আলী সরদার গণমাধ্যমকে বলেন, সোমবার সকাল থেকে কাউন্টারে ট্রেনের টিকিট বিক্রি শুরু হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।