• ২৭শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১২ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ৩রা জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

ক্যানসার প্রতিরোধ করে পেঁপে

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত আগস্ট ৮, ২০২১
ক্যানসার প্রতিরোধ করে পেঁপে
Spread the love

পৃথিবীজুড়ে পুষ্টিগুণের কারণে পেঁপে বেশ জনপ্রিয়। পেঁপে প্রাকৃতিক ভিটামিন ও খনিজের উৎস। শরীরের সব ধরনের প্রক্রিয়া স্বাভাবিক রাখতে সাহায্য করে। পেঁপে কাঁচা কিংবা পাকা-দুই রকমভাবেই খাওয়া যায়। পেঁপেতে রয়েছে কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন, ফাইবার বা আঁশ, পটাশিয়াম, ভিটামিন এ, ভিটামিন সি, ভিটামিন বি৯ এবং প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট। তা ছাড়া অল্প পরিমাণে রয়েছে ম্যাগনেশিয়াম, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ই, ভিটামিন কে এবং কয়েক ধরনের ভিটামিন বি।

পেঁপের বীজও শরীরের জন্য উপকারী। এতে ভিটামিন এ, বি, সি থাকায় এটি হৃদরোগে জন্য দারুণ কার্যকরী। এছাড়া এতে থাকা ভিটামিন ই এবং সি শরীরে কোলেষ্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে।

গবেষণায় দেখা গিয়েছে, পেঁপেতে থাকা লাইসোপিন ক্যানসারের ঝুঁকি কমাতে সাহায্য করে। যারা ক্যানসারে ভুগছেন তাদের জন্যও পেঁপে উপকারী।

অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসমৃদ্ধ পেঁপেতে ভিটামিন বি, সি-এর পাশাপাশি ফাইবার, ম্যাগনেশিয়ামও থাকে। পেঁপেতে বিদ্যমান পুষ্টি উপাদান হৃদরোগজনিত যেকোনো সমস্যা এবং কোলন ক্যানসারের ঝুঁকি কমায়।

এছাড়া পেঁপে হজমশক্তি বাড়াতে, ওজন কমাতে, নিয়মিত মাসিক হতে, যেকোনো ধরনের সংক্রমণ কমাতে সাহায্য করে। এটা দাঁতের ব্যথা কমাতেও কার্যকরী ভূমিকা রাখে। যাদের কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা আছে তাদের জন্য পেঁপে খুবই উপকারী। বাতের ব্যথা প্রতিরোধে এটি সাহায্য করে। এছাড়া শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়ায়।

ভিটামিন ও খনিজের পাওয়ার হাউস বলা হয় পেঁপেকে। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। হার্টের স্বাস্থ্য ভালো রাখে। ওজন কমানোর ক্ষেত্রে লো-ক্যালরির এই ফল সহায়ক। কাঁচা পেঁপের রস বা পাকা পেঁপের কোমল মণ্ড চামড়ায় ঘষলে তামাটে ভাব কেটে যায়। দৃষ্টিশক্তি বাড়ায়।

পেঁপের মণ্ড, আধ কাপ বেসন, তিন চামচ টকদই ও কয়েক ফোঁটা গোলাপ জল এবং একটি লেবুর রস মিশিয়ে তা মুখে ও ঘাড়ে মাখুন। ২০ মিনিট রাখুন। পরে ঠান্ডা পানিতে ধুয়ে নিলে চামড়া মসৃণ ও উজ্জ্বল হয়ে উঠবে

অনিয়মিত পিরিয়ডের মোকাবিলায় সাহায্য করে।

পেঁপের মণ্ড, আধ কাপ টক দই ও আধ চামচ মধুর মিশ্রণ ২০ মিনিট ধরে চুলে লাগিয়ে রাখুন। পরে অল্প গরম পানিতে ধুয়ে নিন। চুলে চকচকে ভাব দেখা যাবে।

ত্বকের জন্য পেঁপে অনেক উপকারী। স্বাস্থ্য ভালো রাখার সঙ্গে সঙ্গে ত্বকের ঔজ্জ্বল্য বাড়াতে, একজিমা রোধ করতে এবং ত্বকের বিভিন্ন সমস্যা দূর করতে পেঁপে খুবই উপকারী। শরীরের জ্বালা যন্ত্রণা কমাতে সাহায্য করে পেঁপে।

চিনির পরিমাণ কম থাকায় ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য পেঁপে একটি আদর্শ ফল। যাদের ডায়াবেটিস নেই তাদের প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় পেঁপে রাখা উচিত। পেঁপে ডায়াবেটিস হওয়া প্রতিরোধ করে।

শ্বাস-প্রশ্বাসের আরোগ্য ক্ষেত্রে পেঁপের ভূমিকা অনেক। নিয়মিত পেঁপে খাওয়ার ফলে শ্বাস-প্রশ্বাসের সমস্যা কমে যায়। দাঁতের যন্ত্রণার অব্যর্থ ওষুধ হলো পেঁপে। অন্ত্রের কৃমি রোধ করে পেঁপে। যাদের ডায়াবেটিস আছে তারা পাকা পেঁপের বদলে কাঁচা পেঁপে খেতে পারেন।

পেঁপের রস খেলে জন্ডিস হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়। এই ফল খেলে শরীর থেকে দূষিত বায়ু সহজেই বেরিয়ে যায়।

কিডনির সমস্যাও সমাধান করতে পারে পেঁপেতে থাকা পুষ্টিকর উপাদানগুলো। পেঁপেতে প্রচুর পরিমাণে পটাসিয়াম থাকে, যা কিডনিতে জমে থাকা টক্সিনগুলো পরিষ্কার করতে সাহায্য করে। এই ফলটি রক্তে ইউরিক অ্যাসিডের ঘনত্ব হ্রাস এবং কিডনির ক্ষতির সম্ভাবনা থেকে রক্ষা করে। এছাড়াও কাঁচা পেঁপেতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ম্যাগনেশিয়াম, পটাশিয়াম এবং ভিটামিন ‘এ’, ‘সি’ ও ‘ই’। আর এ উপাদানগুলো কিডনির সমস্যা দূর করতে খুব উপকারী।