• ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ৬ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৪ই সফর, ১৪৪৩ হিজরি

একজনকে এক মিনিটে দুইবার টিকা! তদন্ত কমিটি গঠন

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত আগস্ট ৯, ২০২১
একজনকে এক মিনিটে দুইবার টিকা! তদন্ত কমিটি গঠন

হবিগঞ্জ জেলার বাহুবলে রবি কালিন্দী নামের এক চা শ্রমিক ১ মিনিটের ব্যবধানে করোনাভাইরাসের দুই ডোজ টিকা পেয়েছেন।

বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিকাদান কেন্দ্রে সোমবার (৯ আগস্ট) সকাল সাড়ে ১১টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। রবি কালিন্দী (৫৪) উপজেলার পুটিজুরী ইউনিয়নের বৃন্দাবন চা বাগানের বাসিন্দা। দুই ডোজ টিকা গ্রহণকারী ওই চা শ্রমিক বর্তমানে স্বাস্থ্য বিভাগের পর্যবেক্ষণে আছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও সংশ্লিষ্ট টিকা গ্রহীতা জানান, সোমবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিকাদান কেন্দ্রে যান উপজেলার বৃন্দাবন চা বাগানের রবি কালিন্দী নামের ওই শ্রমিক। তার নামীয় টিকার রেজিস্ট্রেশন ফরমটি অনলাইনে যাচাই করার পর টিকাদান কর্মীদের সামনের চেয়ারে বসতে বলা হয়। প্রথমে তার বাম হাতে একটি টিকা দেওয়া হয়। টিকা নেওয়ার পরও ওই চা শ্রমিক চেয়ারটিতেই বসে ছিলেন। এ সময় ওই টিকাদান কর্মী বিপরীত দিকে ঘুরে টিকা ভর্তি আরেকটি সিরিঞ্জ হাতে নেন এবং চেয়ারে বসে থাকা চা শ্রমিককে শার্ট খুলে হাত বের করতে বলেন।

ওই চা শ্রমিক ডান হাতের বাহু উন্মুক্ত করে দেয়ার সাথে সাথে ওই টিকাদান কর্মী আরেক ডোজ টিকা প্রদান করেন। লাইনে দাঁড়ানো অন্যান্য লোকজন বিষয়টি টিকাদান কাজে নিয়োজিত স্বাস্থ্য কর্মীদের অবগত করলে সাথে সাথে ওই চা শ্রমিককে পর্যবেক্ষণে নেওয়া হয়।

বাহুবল উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. বাবুল কুমার দাশ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, সোমবার সকাল থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিকাদান কেন্দ্রে উপচেপড়া ভিড় ছিল। ভিড় সামাল দিতে গলদগর্ম টিকাদাতা স্বাস্থ্যকর্মী ও টিকা গ্রহীতার ভুল বুঝাবুঝি এবং অসাবধানতার কারণে ১ মিনিটে দুই ডোজ টিকাদানের ঘটনা ঘটেছে। বিষয়টি জানার সাথে সাথে টিকা গ্রহীতা ওই ব্যক্তিকে পর্যবেক্ষণে নেওয়া হয়েছে। কয়েক ঘন্টা পর্যবেক্ষণের পর তার শারীরিক কোনো সমস্যা দেখা না দিলে তাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয়। পরবর্তীতে তার শারীরিক অবস্থার নিয়মিত খোঁজ-খবর নেওয়া হবে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।