• ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১১ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৯শে সফর, ১৪৪৩ হিজরি

নগরীর বিদ্যুৎ লাইন দ্রুত ভূগর্ভে নিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত আগস্ট ১৭, ২০২১
নগরীর বিদ্যুৎ লাইন দ্রুত ভূগর্ভে নিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি

সিলেট নগরীর মোট ১১টি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার নিচ দিয়ে লাইন নিতে বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. হাবিবুর রহমান বরাবরে একটি সরকারি চাহিদাপত্র (ডি.ও লেটার) প্রেরণ করেছেন সিলেট-১ আসনের এমপি ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ. কে. আব্দুল মোমেন।

সোমবার (১৬ আগস্ট) বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিবের কাছে প্রেরিত ওই চিঠিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘‘বর্তমানে পিডিবি কর্তৃক সিলেট মহানগরীতে চলমান আন্ডারগ্রাউন্ড বিদ্যুৎ কেবল স্থাপন প্রকল্পের ডিপিপি রিভাইসড করা হচ্ছে এবং রিভাইসড ডিপিপি-তে মহানগরীর প্রধান প্রধান ১১টি সড়ক- যার দৈর্ঘ্য ১৪.৬৬ কিলোমিটার অন্তর্ভূক্ত করার জন্য সিলেট সিটি কর্পোরেশনের প্রস্তাব প্রেরণ করেছেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রীর চিঠি অনুযায়ী- প্রথম পর্যায়ে সিলেটের সাড়ে ১৪ কিলোমিটার রাস্তায় টানা হবে ভূ-গর্ভস্থ বৈদ্যুতিক লাইন। এ বিষয়ে মঙ্গলবার (১৭ আগস্ট) বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন প্রকল্প (বিউবো)-এর এক জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা রয়েছে। বৈঠকে এ বিষয়ে বিস্তারিত পর্যালোচনা হবে এবং বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিবের নির্দেশনা অনুযায়ী প্রকল্পের কাজ শুরু হবে।

এ বিষয়ে বিউবো’র প্রকল্প পরিচালক (অ. প্র. প্র.) পল্লবী বলেন, প্রথম সিলেট নগরীতে ৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ৭ কিলোমিটার রাস্তার ভূগর্ভস্থ বিদ্যুৎ লাইন টানার প্রকল্প শুরু হয়। পরবর্তীতে কাজের এলাকা বেড়ে যাওয়ায় বাজেটের চাইতে খরচ বেশি হওয়ায় আমরা কাজ বন্ধ রাখি। পরবর্তীতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয় বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব বরাবরে দুটি ডি. লেটার প্রেরণ করেন। এর মধ্যে সোমবার একটি। চিঠি পাওয়ার পরপরই সচিব স্যারের নির্দেশে আগামীকাল (মঙ্গলবার) আমরা এ বিষয়ে জরুরি বৈঠক ডেকেছি। বৈঠক শেষে বিস্তারিত বলা যাবে।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের জুলাইয়ে ‘সিলেট বিভাগে বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থা উন্নয়ন’ শীর্ষক ২ হাজার ৫৩ কোটি টাকার প্রকল্প অনুমোদন করে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এ প্রকল্পের আওতায় প্রাথমিকভাবে ৫৫ কোটি টাকা ব্যয়ে নগরীর কিছু এলাকার বিদ্যুৎ লাইন ভূগর্ভে স্থানান্তরের কাজ শুরু হয়।

ফলে ২০২০ সালের জানুয়ারিতে হযরত শাহজালাল (রহ.) মাজার এলাকার সড়কের ওপরে থাকা বিদ্যুতের খুঁটি সরিয়ে মাটির নিচ দিয়ে সংযোগ চালু করা হয় বিদ্যুতের। পরে জঞ্জালবিহীন হয় নগরীর আম্বরখানা থেকে বন্দরবাজার এবং পুর্বপশ্চিম জিন্দাবাজার এলাকার রাস্তা।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।