• ২৮শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৫শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

বিশ্বনাথে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় কিশোর গ্রেফতার

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত আগস্ট ২৬, ২০২১
বিশ্বনাথে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলায় কিশোর গ্রেফতার
Spread the love

চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রীকে ধর্ষণের মামলার অভিযুক্ত ইমন মিয়া (১৫)’কে গ্রেফতার করেছে সিলেটের বিশ্বনাথ থানা পুলিশ। ইমন নেত্রকোনার কেন্দুয়া উপজেলার বাড়ই গ্রামের আতিক মিয়ার পুত্র ও বিশ্বনাথ সদর ইউনিয়নের পূর্ব শ্বাসরাম গ্রামের অস্থায়ী বাসিন্দা। বুধবার দিবাগত রাতেই পূর্ব শ্বাসরাম এলাকা থেকে ধর্ষক ইমনকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

এ ব্যাপারে স্কুল ছাত্রীর পিতা বাদী হয়ে বিশ্বনাথ থানায় ইমনের বিরুদ্ধে ‘নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে’ মামলা দায়ের করেছেন। মামলা নং- ১৫ (তাং- ২৫.০৮.২১ইং)।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলার সদর ইউনিয়নের পশ্চিম শ্বাসরাম গ্রামের ৪র্থ শ্রেণীর ওই ছাত্রী বুধবার (২৫ আগস্ট) বিকেলে খেলার উদ্দেশ্যে পার্ববর্তী পূর্ব শ্বাসরাম তার সহপাঠির বাড়িতে যায়। খোশগল্পের এক পর্যায়ে বান্ধবী পুকুর ঘাটে গেলে, সে তার মায়ের সাথে কথা বলছিল। তখন পাশাপাশি বাড়িতে বসবাসকারী বখাটে কিশোর ইমন তাকে ডেকে গ্রামের সেলিম মিয়ার রান্নাঘরে নিয়ে গিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এরপর ইমন সেখান থেকে পালিয়ে যায়। দীর্ঘ সময় ঘটনাস্থলে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকে ওই ধর্ষণেল শিকার হওয়া স্কুল ছাত্রী। দীর্ঘ সময় বাড়িতে তার অনুপস্থিতি দেখে, অনেক খোঁজাখুজি করার এক পর্যায়ে সেলিম মিয়ার রান্না ঘর থেকে তাকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করেন ভিকটিমের দাদী। খবর পেয়ে রাতেই অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত কিশোর ইমনকে গ্রেফতার করে থানা পুলিশ।

ধর্ষণের ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের ও ধর্ষক ইমনকে গ্রেফতারের সত্যতা স্বীকার করে বিশ্বনাথ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) গাজী আতাউর রহমান বলেন, তদন্ত সাপেক্ষে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।