• ২২শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ৮ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ১৯শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

সিলেটে করোনায় ৮ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৮০

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত আগস্ট ৩১, ২০২১
সিলেটে করোনায় ৮ মৃত্যু, নতুন শনাক্ত ৮০
Spread the love

গত চব্বিশ ঘণ্টায় সিলেট বিভাগে নতুন করে ৮০ জন করোনা আক্রান্ত রোগী শনাক্ত হয়েছে। আর মৃত্যু হয়েছে ৮ জনের।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সিলেট বিভাগীয় অফিসের তথ্য জানা যায়, সিলেট বিভাগে গত ২৪ ঘণ্টায় ৯০০ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। মোট পরীক্ষার ৮ দশমিক ৮৯ শতাংশের করোনা শনাক্ত হয়। এর মধ্যে সিলেট জেলায় শনাক্তের হার ৬ দশমিক ৭০ শতাংশ, সুনামগঞ্জে ১৩ দশমিক ৩৩ শতাংশ, হবিগঞ্জে ১৪ দশমিক ৪৬ শতাংশ এবং মৌলভীবাজারে ১৮ শতাংশ।

নতুন শনাক্ত হওয়া ৮০ জনের মধ্যে ৪৬ জন সিলেট জেলার বাসিন্দা। বাকিদের মধ্যে সুনামগঞ্জের ৪ জন, হবিগঞ্জের ১২ জন এবং মৌলভীবাজার জেলার ১৮ জন।

এ নিয়ে বিভাগে করোনাভাইরাস শনাক্তের সংখ্যা ৫২ হাজার ৮৯৪ জনে দাঁড়িয়েছে। এদের মধ্যে সিলেট জেলায় সর্বোচ্চ ৩২ হাজার ৬০৯ জন, সুনামগঞ্জে ৬ হাজার ৮৫ জন, হবিগঞ্জে ৬ হাজার ৪৫৫ জন ও মৌলভীবাজারে ৭ হাজার ৭৪৫ জন রয়েছেন। একই সময়ে সিলেটে ১৪৭ জন রোগী সুস্থ হয়ে উঠেছেন।

সুস্থদের মধ্যে ১০২ জনই সিলেট জেলার বাসিন্দা। বাকিদের মধ্যে সুনামগঞ্জের ৬ জন, হবিগঞ্জের ১৩ জন ও মৌলভীবাজার জেলার ২৫ জন রয়েছেন। বিভাগে এ পর্যন্ত ৪৩ হাজার ৪৭৮ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী সুস্থ হয়েছেন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় ২৯ হাজার ২৫৯ জন, সুনামগঞ্জে ৪ হাজার ৭৬৯ জন, হবিগঞ্জ জেলায় ৩ হাজার ৩৮১ জন ও মৌলভীবাজারে ৬ হাজার ৬৯ জন সুস্থ হয়েছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় বিভাগে মারা যাওয়া ৮ জনের সকলেই সিলেট জেলার বাসিন্দা। এনিয়ে বিভাগে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেলেন ১ হাজার ৬৭ জন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় সর্বোচ্চ ৮৭৭ জন, সুনামগঞ্জে ৭২ জন, হবিগঞ্জে ৪৬ জন এবং মৌলভীবাজার জেলায় ৭২ জন মারা গেছেন।

এদিকে একই সময়ে সিলেট বিভাগে করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৩ জন বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। যাদের ১২ জনই সিলেট জেলায়। এ নিয়ে বিভাগের বিভিন্ন হাসপাতালে ৫৩৯ জন রোগী চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এর মধ্যে সিলেট জেলার বিভিন্ন হাসপাতালে ৪৬৬ জন, সুনামগঞ্জের হাসপাতালে ৩৩ জন, হবিগঞ্জের হাসপাতালে ১৯ জন ও মৌলভীবাজারের হাসপাতালে ২১ জন চিকিৎসাধীন আছেন।

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।