• ৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ১১ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

নিজের ভোট খুঁজে পেলেন না জাপা প্রার্থী আতিক

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ৪, ২০২১
নিজের ভোট খুঁজে পেলেন না জাপা প্রার্থী আতিক
Spread the love

ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) জটিলতার কারণে নিজের ভোট দিতে পারেন নি সিলেট-৩ আসনের উপ নির্বাচনে জাতীয় পার্টির প্রার্থী আতিকুর রহমান আতিক।

শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) সকালে প্রার্থীর নিজ কেন্দ্র দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মোগলাবাজারের রেবতী রমন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট দিয়ে গিয়ে ফিরে আসেন তিনি। এ তথ্য নিশ্চিত করে আতিকুর রহমান আতিক জানান, সকালে কেন্দ্রে ভোট দিতে গেলে ইভিএম জটিলতার কারণে নিজের ভোট দেয়া সম্ভব হয়নি। তবে নিজের ভোট এখনও রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, দিনের কোনো এক সময় গিয়ে তিনি তার ভোট প্রয়োগ করে আসবেন।

রেবতী রমন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার সাসুদ রানা বলেন, যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে আতিকুর রহমান সকালে ভোট দিতে পারেননি। আমরা তাকে দুই ঘণ্টা পর এসে ভোট দিতে বলেছি।

এদিকে আতিক ভোট দিতে না পারলেও সকালে দক্ষিণ সুরমার কামাল বাজার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট প্রদান করেন আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব। এছাড়া দক্ষিন সুরমার দাউদিয়া গৌছ উদ্দিন সিনিয়র মাদ্রাসায় ভোট প্রদান করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী শফি আহমেদ চৌধুরী।

এর আগে শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) সিলেট-৩ আসনের উপনির্বাচনে (দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জের একাংশ) ১৪৯টি কেন্দ্রে শনিবার সকাল ৮টায় ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোটগ্রহণ শুরু হয়, যা একটানা বিকেল ৪টা পর্যন্ত চলবে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব, জাতীয় পার্টির লাঙ্গল প্রতীকের আতিকুর রহমান আতিক, স্বতন্ত্র প্রার্থী মোটরকার প্রতীকের বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত ও সাবেক সংসদ সদস্য শফি আহমেদ চৌধুরী এবং বাংলাদেশ কংগ্রেসের জুনায়েদ মোহাম্মদ মিয়া ডাব প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

উল্লেখ্য, সিলেটের দক্ষিণ সুরমা, ফেঞ্চুগঞ্জ ও বালাগঞ্জ উপজেলা নিয়ে গঠিত সিলেট-৩ আসনটিতে মোট ভোটার ৩ লাখ ৫২ হাজার ও ভোটকেন্দ্র ১৪৯টি। গত ১১ মার্চ করোনায় এ আসনটির সংসদ সদস্য আওয়ামী লীগ নেতা মাহমুদ উস সামাদ চৌধুরী মারা গেলে আসনটি শূন্য হয়। তপশীল অনুযায়ী গত ২৮ জুলাই এই আসনের উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা থাকলেও করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় এর দুই দিন আগে ভোটগ্রহণ স্থগিত করে আদালত। পরবর্তী সময়ে ৪ সেপ্টেম্বর ভোটগ্রহণের দিন নির্ধারণ করে কমিশন।