• ২৮শে জানুয়ারি, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ১৪ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২৫শে জমাদিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি

তালেবানের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে পাঞ্জশির

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ৬, ২০২১
তালেবানের পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে পাঞ্জশির
Spread the love

বেশ কয়েক দিন ধরে চলে আসা তীব্র লড়াই শেষে তালেবান পাঞ্জশির ‘সম্পূর্ণভাবে নিয়ন্ত্রণে’ নিয়েছে ।

আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা এএফপির বরাত দিয়ে এ তথ্য জানায় ভারতীয় গণমাধ্যম এনডিটিভি।

তালেবানের মুখপাত্র জাবিহুল্লাহ মুজাহিদ এক বিবৃতিতে বলেন, এই বিজয়ের মাধ্যমে আমাদের দেশকে পুরোপুরি যুদ্ধের জলাভূমি থেকে বের করে আনা হয়েছে।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ছবিতে দেখা যায়, তালেবানের সদস্যরা পাঞ্জশির প্রদেশের গভর্নরের বাসভবনের গেটের সামনে দাঁড়িয়ে আছেন।

তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিরোধ যোদ্ধাদের নেতা আহমেদ মাসুদের কোনো প্রতিক্রিয়া জানা যায়নি।

এর আগে আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলীয় পাঞ্জশির প্রদেশের নিয়ন্ত্রণকারী জাতীয় প্রতিরোধ ফ্রন্টের কমান্ডার আহমেদ মাসুদ যুদ্ধবিরতির ব্যাপারে আলোচনার প্রস্তাব দিয়েছিলেন। কিন্তু তালেবান তা নাকচ করে দেয়।

১৫ আগস্ট তালেবান কাবুলের নিয়ন্ত্রণ নেয়। এর পর পাঞ্জশির ছাড়া ৩৩টি প্রদেশের নিয়ন্ত্রণ ছিল গোষ্ঠীটির হাতে। এবার পুরো দেশ নিয়ন্ত্রণে নিতে সক্ষম হলো তালেবান।

আফগানিস্তানের সাম্প্রতিক উত্তাল ইতিহাসে নাটকীয় ও চাপিয়ে দেওয়া পাঞ্জশির উপত্যকাটি প্রথমবারের মতো তালেবান মোকাবিলা করেনি। ১৯৮০-এর দশকে সোভিয়েত বাহিনীর বিরুদ্ধে এবং ‘৯০-এর দশকে তালেবানদের বিরুদ্ধে এটি একটি শক্ত ঘাঁটি ছিল।

ন্যাশনাল রেসিসটেন্স ফ্রন্ট অব আফগানিস্তান (এনআরএফ) সম্প্রতি বিশ্বকে জানিয়ে দিয়েছে, তারা এ উপত্যকাটিতে শক্তিশালী।

এনআরএফের পররাষ্ট্র শাখার প্রধান আলি নাজারি বিবিসিকে বলেছিলেন, রেড আর্মি (সোভিয়েত) আমাদের পরাজিত করতে পারেনি এবং ২৫ বছর আগে তালেবান এ উপত্যকাটি দখল করার চেষ্টা করেছিল এবং তারা ব্যর্থ হয়েছে।

কিন্তু ‘অপরাজিত’ পাঞ্জশির নিয়ন্ত্রণে নিয়ে তালেবান বুঝিয়ে দিল, তারা ‘অপ্রতিরোধ্য’।

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।