• ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২০শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

সিলেটে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত নিম্নমুখী

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২১
সিলেটে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত নিম্নমুখী

সর্বশেষ চব্বিশ ঘন্টায় সিলেটে নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছেন ৪৬ জন। এ সময়ে মারা গেছেন ১ জন। আজ রোববার সকাল অবধি বিভিন্ন হাসপাতালে মাত্র ৯১ জন করোনা রোগী ভর্তি ছিলেন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয় জানায়, গতকাল শনিবার সকাল ৮টা থেকে আজ রোববার সকাল ৮টার মধ্যে সিলেট জেলায় ১ জন করোনা রোগী মারা গেছেন। তাকে নিয়ে বিভাগে মৃতের সংখ্যা এখন ১১৪৩ জন। এর মধ্যে ওসমানীতে ১১৪ জনসহ সিলেট জেলায় মৃতের সংখ্যা ৯৫২ জন। মৃতদের মধ্যে সুনামগঞ্জের ৭২ জন, মৌলভীবাজারের ৭২ জন ও হবিগঞ্জের ৪৭ জন রয়েছেন।

এদিকে, সর্বশেষ চব্বিশ ঘন্টায় সিলেট বিভাগে ৪৬ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় শনাক্ত হন ৩৭ জন। বাকিদের মধ্যে মৌলভীবাজারের ৮ জন ও হবিগঞ্জের ১ জন রয়েছেন। সুনামগঞ্জে কোনো করোনা রোগী শনাক্ত হননি। ৬৯৬ জনের নমুনা পরীক্ষা করে তাদেরকে শনাক্ত করা হয়। শনাক্তের হার ৬.৬১ ভাগ। এর আগের চব্বিশ ঘন্টায় ৩১ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছিলেন।

সবমিলিয়ে বিভাগে করোনাক্রান্তের সংখ্যা এখন ৫৪ হাজার ২৪৭ জন। এর মধ্যে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৪৭৬৬ জনসহ সিলেট জেলায় শনাক্তের সংখ্যা ৩৩ হাজার ৩৯৫ জন। সুনামগঞ্জের ৬২১৮ জন, মৌলভীবাজারের ৮০৩৫ জন ও হবিগঞ্জের ৬৫৯৯ জন রয়েছেন শনাক্তের তালিকায়।

সর্বশেষ চব্বিশ ঘন্টায় বিভাগে সুস্থ হয়েছেন ১৩৭ জন। সুস্থ হওয়াদের মোট সংখ্যা এখন ৪৭ হাজার ৬১২ জন। এদিকে, করোনা রোগী কমতে থাকায় সিলেটের কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতালগুলোতে চাপ কমে এসেছে। আজ সকাল পর্যন্ত ৯১ জন করোনা রোগী হাসপাতালগুলোতে ভর্তি ছিলেন। ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ৩৫০ শয্যার করোনা ইউনিটে আজ ভর্তি আছেন ৮৭ জন।

এর মধ্যে করোনা রোগী ২৫ জন। বাকি ৬২ জনকে সন্দেহভাজন রোগী হিসেবে ওই ইউনিটে রাখা হয়েছে। সিলেট বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হিমাংশু লাল রায় জানান, সিলেট জেলায় করোনা রোগীদের জন্য ৪৮৭টি শয্যা আছে। কিন্তু বেশিরভাগ শয্যাই এখন খালি। করোনা পরিস্থিতির উন্নতি ধরে রাখতে সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।