• ৮ই আগস্ট, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ , ২৪শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ , ১০ই মহর্‌রম, ১৪৪৪ হিজরি

স্ত্রীর পাহারায় কিশোরীকে ধর্ষণ, জাপা নেতা আটক

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১
স্ত্রীর পাহারায় কিশোরীকে ধর্ষণ, জাপা নেতা আটক
Spread the love

ময়মনসিংহে স্ত্রীর পাহারায় টানা পাঁচ মাস এক কিশোরীকে (১৪) ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এ ঘটনায় ময়মনসিংহ জেলা জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক পার্টির সভাপতি হোসেন আলীকে (৫০) আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব-১৪)।

রোববার (১৯) দিবাগত রাত ১২টায় নগরীর কৃষ্টপুর এলাকা থেকে র‍্যাব-১৪ হোসেন আলীকে আটক করে কোতোয়ালি মডেল থানায় সোপর্দ করে। এর আগে র‍্যাব-১৪ এর কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন ওই কিশোরীর বাবা।সোমবার (২০ সেপ্টেম্বর) বাংলানিউজকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহ কামাল আকন্দ।

তিনি জানান, এ ঘটনায় ভিকটিমের বাবা বাদী হয়ে থানায় ধর্ষণ মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় হোসেন আলী ও তার স্ত্রী তামান্না বেগমকে (১৯) আসামি করা হয়েছে। মামলার এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন, নগরীর কৃষ্টপুর এলাকায় ভাড়া বাসায় থাকার সুবাদে প্রতিবেশী হোসেন আলী আমাদের বাসায় আসত। এ সুযোগে সে আমার কিশোরী মেয়ের (১৪) সঙ্গে কথাবার্তা বলত। চলতি বছরের ১৫ জানুয়ারি সকালে হোসেন আলীর তৃতীয় স্ত্রী তামান্না বেগম আমার মেয়েকে তাদের ঘরে ডেকে নিয়ে পূর্বপরিকল্পিতভাবে সেভেন আপের সঙ্গে নেশা জাতীয় ওষুধ সেবন করায়। এতে আমার মেয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়লে তাকে ধর্ষণ করে সে দৃশ্য মোবাইলে ভিডিও ধারণ করে হোসেন আলী। পরে এ ঘটনা প্রকাশ করলে ওই ভিডিও ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে কিশোরীকে তার সঙ্গে নিয়মিত শারীরিক সম্পর্ক করতে বলে ধর্ষক। পরের দিন সকালে আবারও তামান্না বেগম ওই কিশোরীকে ডেকে নিয়ে তার স্বামী হোসেন আলীর কাছে দিয়ে ঘরের দরজা বন্ধ করে বাইরে বসে পাহারা দেয়। এভাবে টানা পাঁচ মাস ওই কিশোরীকে ভিডিও ছেড়ে দেওয়ার ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করে হোসেন আলী।

একপর্যায়ে ঘটনাটি কিশোরী তার মাকে জানালে মান-সম্মানের ভয়ে তারা ভাড়া বাসা ছেড়ে অন্যত্র চলে যায়। কিন্তু ধর্ষক হোসেন আলী সেখানেও অস্ত্রধারী সন্ত্রাসীদের নিয়ে এলাকায় মহড়া দিয়ে আমার মেয়েকে অপহরণ করে হত‍্যার হুমকি দিয়েছে।

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।