• ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২০শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

বিয়ানীবাজারে এক ব্যক্তিকে পরপর ২ বার টিকা প্রয়োগ!

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২১
বিয়ানীবাজারে এক ব্যক্তিকে পরপর ২ বার টিকা প্রয়োগ!

সিলেটের বিয়ানীবাজারে জাহেদ আহমদ নামে ৩৭ বছর বয়সী এক যুবককে একদিনে ৫ মিনিটের ব্যবধানে দুইবার সিনোফার্মের করোনা টিকা দেওয়ার ঘটনা ঘটেছে।

শনিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) দুপুরে বিয়ানীবাজার উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা প্রতিরোধক টিকা বুথে এ ঘটনা ঘটেছে।

জানা গেছে, শনিবার দুপুরে নিজের মা ও স্ত্রীসহ টিকা নিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে যান জাহেদ আহমদ। এ সময় তাকে দুইবার ভ্যাকসিন দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করছেন তিনি। জাহেদ আহমদ উপজেলার মাথিউরা ইউনিয়নের নালবহর গ্রামের মরহুম আব্দুল মুক্তাদির কালা মিয়ার দ্বিতীয় ছেলে।

জাহেদ জানান, শনিবার দুপুরে তিনি মা ও স্ত্রীকে নিয়ে সিনোফার্ম টিকার দ্বিতীয় ডোজ নিতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিকা বুথে গিয়েছিলেন। নিজে প্রথম ডোজ টিকা নেওয়ার পর তার মা ও স্ত্রীর টিকা প্রয়োগ শেষ হওয়ার অপেক্ষায় ছিলেন তিনি। এ সময় তিনি পাশের একটি চেয়ারে গিয়ে বসেন। এরপর প্রায় ৫ মিনিটের মধ্যে আরেকজন নার্স (পুরুষ) এসে তার শরীরে আরেকটি টিকা পুশ করেন।

এক সাথে দুটো ভ্যাকসিন নেওয়া উচিত কি না এ প্রশ্নের জবাবে জাহেদ জানান, তার এ বিষয়ে কোন ধারণা নেই। তাকে একবার টিকা দেওয়া হয়েছে- এ বিষয়টি ওই নার্সকে বললেও তিনি শোনেননি। পরে দ্বিতীয়বার টিকা দিয়ে ‘কিছুই হবে না’ জানিয়ে তাকে বাড়িতে চলে যেতে বলেন ওই নার্স। বাড়িতে গিয়ে পরিবারের সবাইকে বিষয়টি জানান জাহেদ। তবে তার মা ও স্ত্রীকে এক ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে জানিয়েছেন তিনি। বর্তমানে তার শারীরিক অবস্থা স্বাভাবিক আছে উল্লেখ করে তিনি জানান, তার কোনো সমস্যা হচ্ছে না। তবে পরিচিতজনরা তাকে বিশ্রাম নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

এদিকে, এক ব্যক্তিকে দুইবার টিকা দেওয়ার বিষয়ে জানেন না উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মোয়াজ্জেম আলী খান চৌধুরী। তিনি বলেন, এ বিষয়ে কিছুই জানি না। তবে এক ব্যক্তিকে একই দিনে দুইবার ভ্যাকসিন দেওয়ার কোনো নিয়ম নেই। বিষয়টি খোঁজ নিয়ে দেখছি।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।