• ২৬শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ , ১০ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ , ২০শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

টানা দুই দিন মৃত্যুহীন সিলেট

প্রিয় সিলেট ডেস্ক
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২৯, ২০২১
টানা দুই দিন মৃত্যুহীন সিলেট

রোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে টানা দ্বিতীয় দিনের মতো সিলেট বিভাগে কেউ মারা যাননি। মৃত্যুহীন সর্বশেষ চব্বিশ ঘন্টায় নতুন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন ২০ জন। স্বাস্থ্য অধিদফতর সিলেট বিভাগীয় কার্যালয় থেকে পাওয়া গেছে এমন তথ্য।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে বুধবার সকাল ৮টার মধ্যে সিলেট বিভাগে করোনাক্রান্ত হয়ে কেউ মারা যাননি। ফলে মৃতের সংখ্যা আগের মতোই ১১৫৮ জনই আছে। এর মধ্যে ওসমানীতে ১১৭ জনসহ সিলেট জেলায় মৃতের সংখ্যা ৯৬৭ জন।

মৃতদের মধ্যে সুনামগঞ্জের ৭২ জন, মৌলভীবাজারের ৭২ জন ও হবিগঞ্জের ৪৭ জন রয়েছেন।

গত সোমবার সকাল ৮টা থেকে আজ বুধবার সকাল ৮টার মধ্যে, ৪৮ ঘন্টা তথা দুইদিনের মধ্যে সিলেট বিভাগ করোনায় মৃত্যুহীন ছিল। সিলেট সর্বশেষ টানা দুইদিন মৃত্যুহীন ছিল গেল মে মাসের ২ তারিখ সকাল ৮টা অবধি। প্রায় পাঁচ মাস পর একই চিত্র দেখা গেল এবার।

এদিকে, গতকাল মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে আজ বুধবার সকাল ৮টার মধ্যে সিলেট বিভাগে মাত্র ২০ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এর মধ্যে সিলেট জেলায় শনাক্ত হন ১০ জন। বাকিদের মধ্যে সুনামগঞ্জের ২ জন, মৌলভীবাজারের ৪ জন ও হবিগঞ্জের ৪ জন রয়েছেন।

৯৫৩ জনের নমুনা পরীক্ষা করে তাদেরকে শনাক্ত করা হয়। শনাক্তের হার ২.১০ ভাগ।

সবমিলিয়ে বিভাগে করোনাক্রান্তের সংখ্যা এখন ৫৪ হাজার ৫৫৪ জন। এর মধ্যে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৪৮০৫ জনসহ সিলেট জেলায় শনাক্তের সংখ্যা ৩৩ হাজার ৫৯৬ জন। সুনামগঞ্জের ৬২৩৯ জন, মৌলভীবাজারের ৮০৯৫ জন ও হবিগঞ্জের ৬৬২৪ জন রয়েছেন শনাক্তের তালিকায়।

সিলেট বিভাগীয় পরিচালক (স্বাস্থ্য) ডা. হিমাংশু লাল রায় জানান, সর্বশেষ চব্বিশ ঘন্টায় বিভাগে সুস্থ হয়েছেন ৩৯ জন। সুস্থ হওয়াদের মোট সংখ্যা এখন ৪৮ হাজার ৭৬ জন। তিনি জানান, বর্তমানে সিলেটের বিভিন্ন হাসপাতালে ৭৭ জন করোনা রোগী ভর্তি আছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  

প্রতিনিধি :: সিলেটের জৈন্তাপুরে ট্রাকচাপায় নিহত পাঁচজনের মধ্যে চারজন একই পরিবারের। আজ রোববার সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে সিলেট-তামাবিল সড়কের জৈন্তাপুর ফেরিঘাট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত পাঁচজন হলেন জৈন্তাপুরের নিজপাট রুপচেন গ্রামের জামাল উদ্দিনের স্ত্রী সাবিয়া বেগম (৪০), সাবিয়ার মেয়ে সাকিয়া বেগম (৪), তিন মাস বয়সী ছেলে তাহমিদ হোসেন, ননদ হাবিবুন নেছা (৩৮) ও একই গ্রামের সিএনজিচালিত অটোরিকশার চালক হোসেন আহমদ (৩৫)। এ ঘটনায় আহত হয়ে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নিহত সাবিয়ার দেবর জাকারিয়া আহমদ (৪২) ও তাঁর স্ত্রী হাসিনা বেগম (৩০)। পুলিশ ও নিহত ব্যক্তিদের পরিবারসূত্র জানায়, যাত্রীবাহী একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা সকাল সাড়ে ছয়টার দিকে মহাসড়কে উঠলে সিলেট থেকে তামাবিলগামী একটি ট্রাক সেটিকে ধাক্কা দেয়। এতে সিএনজিচালিত অটোরিকশার কয়েকজন যাত্রী ছিটকে পড়ে ট্রাকের চাকায় পিষ্ট হন। এ সময় ঘটনাস্থলে চারজন ও হাসপাতালে নেওয়ার পথে একজনের মৃত্যু হয়। আহত জাকারিয়া আহমদ বলেন, আজ সকালে সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে স্বজনের বাড়িতে যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। জৈন্তাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গোলাম দস্তগীর বলেন, মরদেহগুলো সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ঘটনাস্থল থেকে অটোরিকশাটি থানায় নেওয়া হয়েছে।