২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
১২ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

সরকারি যাকাত ফান্ডের অর্থ শরিয়া মোতাবেক ব্যয় হয়: বিভাগীয় কমিশনার

প্রিয় সিলেট
প্রকাশিত ১৯ মার্চ, মঙ্গলবার, ২০২৪ ২৩:২৯:১৭
সরকারি যাকাত ফান্ডের অর্থ শরিয়া মোতাবেক ব্যয় হয়: বিভাগীয় কমিশনার

নিউজডেস্ক : সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার আবু আহমদ ছিদ্দীকী এনডিসি বলেছেন, সরকারি যাকাত ফান্ডে প্রাপ্ত অর্থ শরিয়া মোতাবেক পবিত্র কুরআনে বর্ণিত খাতসমুহে ব্যয় করা হয়। প্রাকৃতির দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত ও সাময়িক কর্মহীনদের জরুরি সহায়তা, দুস্থ-অসহায়দের চিকিৎসা, শিক্ষা ও কর্মসংস্থানে জেলা ও উপজেলা যাকাত কমিটির মাধ্যমে এই অর্থ বিতরণ হয়।

মঙ্গলবার (১৯ মার্চ) সিলেট বিভাগীয় কমিশনারের সম্মেলন কক্ষে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের যাকাত বিষয়ক সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে তিনি কথা বলেন।

তিনি আরও বলেন, গতবছর সরকারি যাকাত ফান্ডে সারাদেশ থেকে সাড়ে ১১ কোটি টাকা উঠেছিলো। এ বছর ২০ কোটি টাকা টার্গেট ধরা হয়েছে। সরকার নির্ধারিত এই টার্গেট ফিলআপের জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে তিনি জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দেন।

সেমিনারে প্রধান আলোচক ছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের যাকাত ফান্ড বিভাগের পরিচালক ড. মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ। বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি শাহ মিজান শাফিউর রহমান বিপিএম (বার), পিপিএম ও সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) কমিশনার মো. জাকির হোসেন খান।

সেমিনারে স্বাগত বক্তব্য দেন ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সিলেট বিভাগীয় পরিচালক মো. মহিউদ্দিন। মূল প্রবন্ধ ও ডকুমেন্টারি উপস্থাপন করেন ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমি সিলেটের উপপরিচালক মাওলানা শাহ মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম।

প্রধান আলোচকের বক্তব্যে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের যাকাত ফান্ড বিভাগের পরিচালক ড. মোহাম্মদ হারুনুর রশীদ বলেন, যাকাতের মাধ্যমে দারিদ্র বিমোচনের পাশাপাশি সামাজিক সমস্যা নিরসন হয়। তিনি দেশের বিত্তবান ও সরকারি কর্মকর্তাদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে সরকারি যাকাত ফান্ডে যাকাত প্রদানের আহবান জানান।

সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি শাহ মিজান শাফিউর রহমান বিপিএম (বার) পিপিএম বলেন, যাকাত অর্থনৈতিক সুবিচার প্রতিষ্ঠার অন্যতম নিয়ামক। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা তাদের যাকাতের অর্থের অন্তত ৫০ শতাংশ আত্মীয়স্বজনকে ও ৫০ শতাংশ সরকারি যাকাত ফান্ডে প্রদান করলে দেশের সামগ্রিক দারিদ্র বিমোচনে এটি কার্যকর ভূমিকা রাখবে।

সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ (এসএমপি) কমিশনার মো. জাকির হোসেন খান বলেন, যাকাত একটি ফরজ ইবাদত। ব্যক্তিগতভাবে যাকাত প্রদানের পাশাপাশি একটি অংশ সরকারি যাকাত ফান্ডে প্রদান করলে সামাজিক সুফল বয়ে আনবে।

মূল প্রবন্ধে ইমাম প্রশিক্ষণ একাডেমি সিলেটের উপপরিচালক শাহ মুহাম্মদ নজরুল ইসলাম বলেন, যাকাত আদায় ও বিতরণ ব্যবস্থাকে গতিশীল করতে সরকার ইতোমধ্যে ‘যাকাত তহবিল ব্যবস্থাপনা আইন ২০২৪ প্রণয়ন করেছে। সরকারি যাকাত ফান্ডে প্রাপ্ত অর্থ শরিয়া মোতাবেক খাতসমুহে ব্যয় করা হচ্ছে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সকল জেলা ও উপজেলা কার্যালয়ে যাকাতের টাকা নগদে ও চেকে জমা নেওয়া হচ্ছে।

সেমিনারে সিলেট বিভাগের চার জেলা প্রশাসক, পুলিশ সুপার, এপিপি ও বিভাগের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।