২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
১২ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

সিলেটের পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্ গুলোতে পর্যটকের ঢল নেমেছে

priyosylhet24.com
প্রকাশিত ১২ এপ্রিল, শুক্রবার, ২০২৪ ২০:৪৯:৫৭
সিলেটের পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্ গুলোতে পর্যটকের ঢল নেমেছে

প্রিয় সিলেট নিউজডেস্কঃ-ঈদুল ফিতরে টানা পাঁচদিনের সরকারি ছুটি কাটাতে সিলেটের পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্ গুলোতে পর্যটকের ঢল নেমেছে। জেলার সবগুলো পর্যটনকেন্দ্রই এখন লোকে লোকারণ্য। পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে নেই ঠাঁই। প্রকৃতিকন্যা জাফলং, ভোলাগঞ্জের সাদা আর বিছানাকান্দি অথবা চা-বাগান যে দিকেই চোখ যায় সেখানেই ভ্রমণপিপাসুদের ভিড়।

পর্যটকদের ঢল নামায় খুশি পর্যটকনির্ভর পেশার মানুষেরা। হোটেল-মোটেল ব্যবসায়ী, ট্যুর গাইড, আলোকচিত্র শিল্পীরা বলছেন, কিছুদিন বিরতি দিয়ে হলেও প্রাণ ফিরেছে সিলেটের পর্যটনকেন্দ্রগুলোতে।

প্রকৃতির টানে ছুটে আসা পর্যটকদের বাঁধভাঙা আনন্দ-উচ্ছ্বাসে সিলেটের পর্যটন কেন্দ্রলোতে আনন্দের ঢল নেমেছে। ঈদের ছুটির দ্বিতীয় দিনে মুখরিত পর্যটনকেন্দ্রসমূহ। ঈদের দিন বিকেলে এখানকার চা-বাগানগুলোতে পর্যটকদের ভিড় দেখা গেছে সবচেয়ে বেশি।সিলেট জেলার সাতটি পর্যটন স্পটের পাশাপাশি চা-বাগান, কমলা বাগান, খাসিয়াপুঞ্জি সবই ঘুরে দেখছেন পর্যটকরা। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পর্যটকরে ভিড় জাফলংয়ে। গোয়াইনঘাট উপজেলার পাথরবেষ্টিত এ পর্যটনকেন্দ্র দেশের অন্যতম সুপরিচিত বলেই এখানে ভিড়টা তুলনামুলকভাবে বেশি।

জাফলং, লালাখাল, বিছনাকান্দি, রাতারগুলের মতো সাদাপাথরেও প্রচুর পর্যটক এসেছেন এবার। সিলেট শহর থেকে মাত্র ৩২ কিলোমিটার দূরত্বের সাদাপাথর স্থানীয় লোকজন ও পর্যটকের পছন্দের শীর্ষ তালিকায় রয়েছে। ধলাই নদীর শীতল পানির স্পর্শ নিতে মানুষ ছুটে যান সেখানে। বাইরে থেকে আসা পর্যটকদের সাথে যোগ দিয়েছেন সিলেটের স্থানীয় সৌন্দর্য পিয়াসীরাও।

এদিকে সিলেটে ঘুরতে আসা পর্যটকদের চাপে হিমশিম খাচ্ছে হোটেলগুলোও। নগরীর আবাসিক হোটেলগুলোতে জায়গা নেই। গত তিন দিন থেকে অনেক পর্যটককেই হোটেল না পেয়ে ফিরে যেতে দেখা গেছে।

নগরীর জিন্দাবাজারের হোটেল গোল্ডেন সিটির ব্যবস্থাপক জানান, ঈদের দিন থেকে হোটেলে ভিড় বাড়তে থাকে। রোববার দুপুর পর্যন্ত আমাদের পুরো হোটেলই বুক হয়ে যায়। এরপর থেকে অনেককেই ফিরিয়ে দিতে হয়েছে পর্যটকদের ।

জাফলং হোটেল মোটেল ও রির্সোস সমিতির সভাপতি এবং গ্রীন রির্সোসের স্বত্বাধিকারী বাবলু বখত জানান, অন্য বছরের চেয়ে এবার পর্যটকদের সংখ্যা অনেকগুণ বেশি, আমাদের হোটেলে কোনো রুম খালি নেই।

জাফলং ট্যুরিস্ট পুলিশ সিলেট রিজিয়নের পুলিশ পরিদর্শক আখতার হোসেন বলেনপর্যটকদের নিরাপত্তায় ট্যুরিস্ট পুলিশ ও সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী তৎপর রয়েছে।সাদাপাথরে এই ঈদে প্রতিদিন কয়েক হাজার লোক ঘুরতে আসছেন। আমাদের কয়েকটি টিম সার্বিক নিরাপত্তায় নিয়োজিত আছে।