২০শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
১২ই জিলকদ, ১৪৪৫ হিজরি

মূল্যহ্রাস-মূল্যফাঁস হানিফ সংকেত মূল্যহ্রাস-মূল্যফাঁস

priyosylhet24.com
প্রকাশিত ১৭ এপ্রিল, বুধবার, ২০২৪ ১৫:৪৫:১১
মূল্যহ্রাস-মূল্যফাঁস হানিফ সংকেত মূল্যহ্রাস-মূল্যফাঁস

হানিফ সংকেত:বাজারে নিত্যপণ্যের দামের উত্তাপ বেড়েই চলেছে। পবিত্র রমজান মাসে মুসলিম প্রধান অধিকাংশ দেশেই নিত্যপণ্যের দাম যেখানে কমে, সেখানে আমাদের দেশে চড়া দামের খপ্পরে পড়ে ক্রেতাদের দুর্ভোগ বেড়েছিল। চলে গেছে পবিত্র রমজান মাস কিন্তু এখনো দাম কমার আশ্বাসে বিশ্বাস-অবিশ্বাসের দোলায় দুলছে ভোক্তারা। কারণ মিথ্যের চাদরে ঢাকা মূল্যহ্রাসের সর্বনাশী চক্রে আমরা ঘুরপাক খাচ্ছি। ২-১টি পণ্য ছাড়া সেই অর্থে মূল্যহ্রাস হয়নি কোথাও। মূলত গত রমজান মাসে দাম বাড়তে পারে এই আশঙ্কায় বিভিন্ন মাধ্যমে আলোচনা-সমালোচনা হওয়ায় উল্টো রমজানের আগেই অনেকে এসব পণ্যের দাম বাড়িয়ে দিয়েছিল। কেউ বলছেন দেশে এখন মূল্যসন্ত্রাস চলছে। অনেকেই ব্যবস্থাপনার দুর্বলতাই এর প্রধান কারণ বলে মনে করেন।

এই বাজারের অবস্থা বোঝা বড়ই কঠিন। বাজার কখন চড়ে, কখন পড়ে, কারা চড়ায়, কারা পড়ায় আর কারাই বা কলকাঠি নাড়ায় তা বোঝা মুশকিল। ঈদের কাঁচাবাজারের বাজারেও ছিল করুণ হাল। বাজার কাঁচা হলেও এখানেও বাঁচা-মরার আশঙ্কা আছে। যদি কাউকে প্রশ্ন করা হয় দেশে এই মুহূর্তে সব চাইতে অস্বস্তিকর জায়গার নাম কী, সহজ উত্তর-‘বাজার’। অসহনীয় ও ঊর্ধ্বমুখী পণ্যমূল্যের চাপে কোণঠাসা সবাই। বিশেষ করে দেশে নিম্নবিত্ত ও দরিদ্রশ্রেণির মানুষ চরমভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। গত ১৫ মার্চ একটি ধারা বলে ২৯টি দেশি কৃষিপণ্যের মূল্য নির্ধারণ করে কৃষি বিপণন অধিদফতর। পণ্যের উৎপাদন, পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে দাম বেঁধে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু বাজার ঘুরে দেখা গেছে কেউই বেঁধে দেওয়া দামে বিক্রি করছে না পণ্য।
আবার স্বউদ্যোগে কেউ মূল্যহ্রাসে বিক্রি করলে মূল্য সন্ত্রাসীরা ক্ষেপে যান। কারণ অতিমূল্যে বিক্রীত দ্রব্য যখন কম মূল্যে বিক্রি হয় তখনই মূল্যহ্রাস হয় এবং আসল মূল্যফাঁস হয়। গরুর গোস্তের কথাই ধরা যাক, খলিল সাহেব কম মূল্যে বিক্রি করতে পারলে অন্যে কেন পারবে না? সরকার নির্ধারিত দাম অনুসারে গরুর মাংসের দাম হওয়া উচিত সর্বোচ্চ ৬৬৪ টাকা কেজি। তেমনি চাষের পাঙাশের খুচরা মূল্য ১৮১ টাকা। যতই দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হোক না কেন ব্যবসায়ীরা এসব মূল্য মানছে না। এই অবাধ্যতার জন্য কেউ কোনো ব্যবস্থাও নিচ্ছে না। ফলে ভোক্তাদের ওপর বাড়ছে মূল্য সন্ত্রাসীদের মূল্য নির্যাতন।

অর্থনীতিবিদরা মনে করেন উৎপাদন এবং পর্যাপ্ত সরবরাহ না থাকায় খাদ্য পণ্যের দাম বেড়েছে। চাল ছাড়া অধিকাংশ পণ্যই আমাদের আমদানি করতে হয়। এসব কারণে খাদ্য মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। জানা যায় খাদ্যপণ্যের মার্কেট শেয়ার এখন কয়েকটি নির্দিষ্ট কোম্পানির নিয়ন্ত্রণে। ফলে নানান কারসাজিতে নিত্যপণ্যের দাম এখন যেভাবে বেড়ে চলেছে তা অনাকাক্সিক্ষত এবং অস্বাভাবিক। কিছু কিছু ব্যবসায়ীর অতি মুনাফার আসক্তি এবং অবৈধভাবে পণ্য মজুতও মূল্যবৃদ্ধির অন্যতম একটি কারণ। অবস্থাদৃষ্টে মনে হয় বাজার নিয়ন্ত্রণে কর্তৃপক্ষও অসহায়। একটি মহল সিন্ডিকেট করে বিভিন্ন টালবাহানায় পণ্যমূল্য বৃদ্ধি করে সাধারণ মানুষকে সংকটে ফেলছে। টিসিবির ট্রাকের পেছনে দেখা যায় দরিদ্র মানুষের বিশাল লাইন। পণ্য ও পরিষেবার মূল্যবৃদ্ধির কারণে দরিদ্র মানুষের সঞ্চয় বলে কিছু থাকে না। ক্ষুধা কেড়ে নিচ্ছে তাদের সঞ্চয়। পণ্যের দাম বাড়ানো হয় বলেই দাম বাড়ে। দাম বাড়ার সপক্ষে যুক্তি দিয়ে কেউ কেউ গলা বাড়িয়ে বলেন, সারা বিশ্বেই তেল এবং ভোগ্যপণ্যের দাম বাড়ছে। একসময় এ জন্যে রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করানো হতো। এই অজুহাত প্রবণতা এখন কিছুটা কমেছে।

শুধু খাদ্যপণ্যই নয়-রোজা শেষে ঈদ আসে, মানুষ আনন্দে ভাসে। কিনতে পারলে ক্রেতা খুশি- বিক্রি করে বিক্রেতা খুশি। তবে ঈদের দুর্মূল্যের বাজারে মূল্যবান সামগ্রীর মূল্যমান সন্দেহ অমূলক নয়। কারণ মূল্য বাড়ে, মূল্য কমে দোকানে দোকানে ঝোলে মূল্যহ্রাস। তবে এই মূল্যহ্রাসের রহস্য উন্মোচিত হয় যখন আসল মূল্যফাঁস হয়।

নিত্যপণ্যের বিষয়টা তো সবারই জানা। এক কথায় সবাই স্বীকার করে নিয়েছেন সিন্ডিকেটের মাধ্যমে এই বাজার নিয়ন্ত্রিত হয়। আবার প্রচার-প্রচারণায় কিছু অদ্ভুত বিষয় লক্ষ্য করা যায়। সংবাদকর্মীরা বিশেষ করে ইলেকট্রনিকস মিডিয়ার সংবাদকর্মীরা মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে বিভিন্ন খাদ্যপণ্য দেখিয়ে কখনো বলেন, এই পণ্যের দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। কখনো বলেন, ওই পণ্যের দাম বেড়েছে। কোথাও স্বস্তির খবর নেই, এই মূল্যের চাপে মানুষও অস্থির। পিঁয়াজের কথাই ধরা যাক। এই পিঁয়াজ আবার দুই রকম-দেশি পিঁয়াজ এবং বিদেশি পিঁয়াজ অর্থাৎ আমদানি করা পিঁয়াজ। পত্রিকায় প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী দেশি পিঁয়াজের দাম গত এক বছরে ১৪০.৯১ শতাংশ এবং আমদানি করা পিঁয়াজ ১০০ শতাংশ বেড়েছে। এই দেশি পিঁয়াজ বছরখানেক আগে ৫০-৬০ টাকায় কেজি বিক্রি হলেও, বর্তমানে ১৩০-১৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। কিন্তু এই দাম কমে যখন ৮০-৯০ টাকা আসে তখন ফলাও করে প্রচার করা হয় পিঁয়াজের দাম কমেছে। অথচ এই পিঁয়াজই বিক্রি হতো ৫০-৬০ টাকা কেজি। ৫০ টাকার পিঁয়াজ ৮০ টাকায় বিক্রি হলে নিশ্চয়ই সেটা কম নয়। এভাবে মূল্যফাঁস হলেই বোঝা যায় মূল্যহ্রাস নয় মূল্যগ্রাস করা হচ্ছে।

শুধু পিঁয়াজই নয়, আমাদের অনেকেরই পছন্দের শাক হচ্ছে লালশাক। কদিন আগে মানিকগঞ্জের সিংগাইরে একটি লালশাকের খেতে গিয়েছিলাম শুটিংয়ের কাজে। পুরো একটি খেত লাল হয়ে আছে। দেখলাম কৃষক ও কৃষানি শাকের আঁটি বাঁধছেন। জিজ্ঞেস করলাম, এক আঁটি কত? বললেন, ৫ টাকা আঁটি। এক আঁটি শাক আমরা কিনি ১০-১৫ টাকায়। অথচ এর পরিবহন মূল্যও খুব বেশি নয়। ঢাকা থেকে হেমায়েতপুর স্বল্প দূরত্ব। এখানেও লাভ নিয়ে যাচ্ছে মধ্যস্বত্বভোগীরা। ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না কৃষক। পুরো খেতের শাক বিক্রি করেও ৫০০ টাকা পাবে কি না সন্দেহ।

শুধু খাদ্যপণ্যই নয় ঈদের পোশাক কিনতে গিয়েও এই মূল্যহ্রাসের যন্ত্রণায় পড়তে হয়েছে। ক্রেতা আকর্ষণের জন্য এসব বাজারে যেসব লটারি, ফ্রি বা মূল্যহ্রাসের ঘোষণা দেওয়া হয় তাতে মূল্যবান, মূল্যহীন বা মূল্যহ্রাসের মূল্যায়ণ করতে গিয়ে অনেকেরই অমূল্য সময় নষ্ট হয়।

প্রশ্ন জাগা স্বাভাবিক এর পরে আর কী আকর্ষণ আসবে যাতে ক্রেতারা ফাঁসবে। মূল্যহ্রাস লেখা জামাটি কিনতেও খরচ করতে হয় দু-তিন হাজার টাকা। বিক্রেতাকে জিজ্ঞেস করলে বলেন- এটার মূল্য ছিল ৪ হাজার, এখন ৫০ শতাংশ সেল চলছে। অর্থাৎ অর্ধেক মূল্যহ্রাস করা হয়েছে। এখন আপনি এই কথা বিশ্বাস করে কাপড় কিনবেন না চলে যাবেন সেটা আপনার ইচ্ছে। আবার রয়েছে ‘বাই ওয়ান গেট ওয়ান ফ্রি’ অফার।

অর্থাৎ একটা কিনলে একটা ফ্রি। কিন্তু যে দাম দিয়ে দুটোর আশায় একটা কিনলেন, তার দামে যে আপনি এই মানের কাপড় তিনটে পেতেন না তাই বা কে জানে? মোদ্দাকথা ক্রেতা আকর্ষণের জন্য অনেক জানা-অজানা নানান পন্থা অবলম্বন করেন বিক্রেতারা। ঈদ এলে অনেকেরই বেড়ে যায় অর্থ ক্ষিধে। ঈদের বাজার খাসা-তাই দোকানে দোকানে থাকে নানান উপকরণে ঠাসা। যারা সবসময় নানান অজুহাতে দাম বাড়ায়। ব্যবসায়ীদের এই কারসাজির কাছে অনেকেই অসহায়। এই মূল্যহ্রাসের মূল্যফাঁস হলেই মূল্য রহস্য জানা যায়, মানুষ জানছেও। আর তাই এই মূল্যহ্রাসের ওপর মানুষের আস্থা এবং বিশ্বাস কমে গেছে। বলা যায় মূল্যের চাপে মানুষ জর্জরিত। মূল্যস্ফীতির প্রকট প্রকোপে ব্যাগের আকার প্রকার প্রকৃত পক্ষে প্রকৃত ক্রেতার প্রকৃতিতে প্রভাব ফেলছে। এ বিষয়ে আমরা একটি নাটিকাও করেছিলাম টিভিতে। স্বামী বাজার থেকে ফিরেছেন, হাতে ব্যাগ। স্ত্রীর কাছে পানি খেতে চাইলেন, কারণ বাজারে চিল্লাচিল্লি করে তার গলা শুকিয়ে গেছে। স্ত্রী জানতে চাইলেন, ‘কেন এই চিল্লাচিল্লি?’ স্বামী উত্তর দিলেন-‘দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি’। স্বামীকে বোঝাতে চেষ্টা করলেন, এই বয়সে হাটবাজারে গিয়ে চিল্লাচিল্লি করা ঠিক নয়। যে কোনো সময় দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। স্বামীর অসহায় উত্তেজিত কণ্ঠ,-

: ‘বাজারেতো যাও না-বুঝবে না। সামান্য সবজি কিনতে গেছি কিন্তু যেভাবে দাম চাইল মনে হয় সবজিও বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়েছে।’

: ‘বুজেছি তার মানে তুমি বাজার থেকে কিছু আননি। ব্যাগ দেখেতো তাই মনে হচ্ছে।’

স্বামী তখন বাজারের ব্যাগ থেকে জিনিসগুলো বের করে স্ত্রীকে দেখিয়ে বললেন,-

: ‘সবই এনেছি, এই যে চার পিস আলু, তিন পিস টমেটো, ২৫০ গ্রাম কুমড়ো, এক ভাগ লাউ।’

স্ত্রী অবাক,- : ‘লাউও কি ভাগে বেচে?’

: ‘না বেচে উপায় কী? একটি লাউ ৬০ টাকা। কদিন আগে ছিল ১০০ টাকা। তখনতো ৩-৪ ভাগে আনতে হতো। কী করবো আমার মতো আর এক ভদ্রলোকের সঙ্গে ভাগে নিয়েছি, উনি অর্ধেক আমি অর্ধেক।’

: ‘কিন্তু পিঁয়াজ-রসুন কী করলে?’

স্বামী ব্যাগ থেকে পিঁয়াজ বের করে বললেন, –

: ‘এই যে চার পিস পিঁয়াজ, দুই পিস রসুন এনেছি।’

স্ত্রী অবাক-

: ‘কিন্তু আমি তো তোমাকে এক পিস, দুই পিস করে আনতে বলিনি? এ দিয়ে কি রান্না হবে?’

: ‘বললামতো বাজারে যাও। দাম শুনলে তুমি কিছুই আনবে না। সুতরাং এগুলোই রান্না করো। এগুলোর ঘ্রাণ দিয়ে ভাত খাবো।’

এই দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধি নিয়ে নানান কথা শোনা যায়। কৃষকের উৎপাদন মূল্য অনুযায়ী বিক্রয়মূল্য আর ভোক্তার ক্রয়মূল্যে অনেক পার্থক্য রয়েছে। বিভিন্ন পর্যায়েই অভিযোগ রয়েছে। কৃষকরা তাদের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে না, সাধারণ মানুষ সাধ্যের বাইরে উচ্চ মূল্যে এসব পণ্য কিনতে পারছে না। ব্যবসায়ীরা বলছেন পরিবহনে চাঁদাবাজির কথা, কেউ বলছেন পুরো বিষয়টিই সিন্ডিকেট দ্বারা নিয়ন্ত্রিত। সব মিলিয়ে পুরো বাজার ব্যবস্থাপনায় চলছে এক ধরনের অরাজকতা। আর কেউ বলছেন, বাজারে চলছে মূল্য সন্ত্রাস। যাতে প্রতিনিয়ত কাবু হচ্ছেন ক্রেতারা। ফলে মধ্যবিত্ত শ্রেণিও এক বুক যন্ত্রণা নিয়ে এখন ঘোমটা বা মাস্ক পরে দাঁড়াচ্ছেন টিসিবির লাইনে। লাজলজ্জার ভয় নেই। পেটে ক্ষুধা থাকলে লজ্জা থাকে না। যাদের অর্থ আছে বাজারের ঊর্ধ্বমূল্য তাদের জন্য কোনো সমস্যা নয় কিন্তু যাদের সীমিত আয়, হিসাব করে সংসার চালান কিংবা যারা দিন এনে দিন খান তাদের অবস্থা অত্যন্ত করুণ। নিত্যপণ্যের বাজারে এই মূল্য অস্থিরতা নিয়ে ভোক্তারা চিন্তিত। স্বল্প ও নির্দিষ্ট আয়ের মানুষের বেহাল অবস্থা। মূল্যবৃদ্ধির কারণে অনেকেই এখন পুষ্টিকর খাবার খেতে পারছেন না। মাংস খাওয়া অনেকে ছেড়েই দিয়েছেন। ফলে পুষ্টি ঘাটতিতে অসুস্থ হচ্ছেন অনেকে।

মাঝে মাঝে কিছু পণ্যের দাম কমে আবার বাড়ে। অর্থাৎ কমে যাওয়াটাকে অনেকে মনে করেন ক্ষণস্থায়ী। কারণ আগামীকাল দাম বেড়ে কত হবে কেউ জানে না। আমরা জানি, সরবরাহ না থাকলে মূল্য বাড়ে কিন্তু সরবরাহ এবং উৎপাদন বৃদ্ধি হলেও অনেক পণ্যের দাম বাড়ছে। মূল্যবৃদ্ধির এই খেলা বন্ধ করতে হবে। পণ্যমূল্য ক্রেতাদের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে আনতে হবে। অন্যথায় বাজার নিয়ে এই অশান্তি ও অস্বস্তি বাড়বেই। মধ্যস্বত্বভোগী এবং বাজার সিন্ডিকেট নামধারী মূল্যবৃদ্ধির এই চক্র অত্যন্ত প্রভাবশালী। এদের মাধ্যমে পরিচালিত হয় মূল্য সন্ত্রাস। বাজার নিয়ন্ত্রণের জন্য এদের প্রভাব থেকে বাজারকে মুক্ত করতে হবে। তার জন্য প্রয়োজন সমন্বিত উদ্যোগ, প্রয়োজন সরকারের আরও কঠিন পদক্ষেপ। নইলে মূল্য সন্ত্রাসের চাপে মানুষের ভোগান্তি বাড়বেই।

লেখক : গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব