২১শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
১২ই শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

অবন্তিকার আত্মহত্যা: সহপাঠী আম্মান ও শিক্ষক দ্বীন ইসলাম আটক

প্রিয় সিলেট
প্রকাশিত ১৬ মার্চ, শনিবার, ২০২৪ ২৩:৪০:৫০
অবন্তিকার আত্মহত্যা: সহপাঠী আম্মান ও শিক্ষক দ্বীন ইসলাম আটক

অনলাইনডেস্ক:-অবন্তিকার আত্মহত্যা: সহপাঠী আম্মান ও শিক্ষক দ্বীন ইসলাম আটক ডিএমপি কমিশনার হাবিবুর রহমান শনিবার রাতে বলেন, ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনার পর থেকে এই দুজনকে নজরদারিতে রাখা হয়েছিল। তারা পুলিশের হেফাজত রয়েছেন।’জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের (জবি) শিক্ষার্থী ফাইরুজ সাদাফ অবন্তিকার আত্মহত্যার ঘটনায় তার সহপাঠী রায়হান সিদ্দিকী আম্মান ও সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলামকে আটক করেছে পুলিশ।ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার হাবিবুর রহমান শনিবার রাতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।তিনি বলেন, ‘জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ওই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর ঘটনার পর থেকে এই দুজনকে নজরদারিতে রাখা হয়েছিল। তারা পুলিশের হেফাজত রয়েছেন।’শুক্রবার রাত ১০টার দিকে কুমিল্লা নগরীর বাগিচাগাঁও ‘পিসি পার্ক স্মরণিকা’ নামের ১০ তলা ভবনের দ্বিতীয় তলার বাসায় অবন্তিকা ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে আত্মহত্যা করেন।আত্মহত্যার ১০ মিনিট আগে নিজের ফেসবুক আইডিতে এক পোস্টে তিনি এ ঘটনার জন্য আম্মান সিদ্দিকী নামে তার এক সহপাঠীকে দায়ী করেছেন। একইসঙ্গে সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলামকেও এ ঘটনার জন্য দায়ী করেন তিনি।এ ঘটনায় দায়ীদের দ্রুত বিচার নিশ্চিতে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। শনিবার বিকেল সাড়ে ৩টায় বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস প্রদক্ষিণ করেন তারা। ভিক্টোরিয়া পার্ক ও কবি নজরুল সরকারি কলেজ ঘুরে মিছিলটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকে এসে শেষ হয়।মিছিল শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাস্কর্য চত্বরে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা ছয় দফা দাবি ঘোষণা করেন। এসব দাবি বাস্তবায়নে ১২ ঘণ্টার আলটিমেটাম দেন তারা।এদিকে এ ঘটনায় একপাক্ষিক চিন্তা না করে পুরো বিষয় চিন্তা করে একটা মতামতে উপনীত হওয়ার আহ্বান জানান অভিযুক্ত সহপাঠী রায়হান সিদ্দিকী আম্মান।শুক্রবার রাতে তিনি ফেসবুকে নিজের আইডিতে এক পোস্টে আম্মান লিখেন, ‘দীর্ঘদিন ধরে ওনার (অবন্তিকা) সঙ্গে কোনো প্রকার যোগাযোগ করিনি। এমনকি ফেসবুক, মেসেঞ্জার বা কোনো জায়গাতেই কানেক্টেড না আমি। আমাকে দোষী প্রমাণের জন্য এভিডেন্স লাগবে। এভিডেন্স ছাড়া এসব অভিযোগ ভিত্তিহীন।’অপর অভিযুক্ত সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলাম ঘটনার একদিন পর শনিবার এ বিষয়ে মুখ খোলেন। অবন্তিকার অকাল মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করে দেয়া এক বিবৃতিতে তার ওপর আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেন এই শিক্ষক। ঘটনার বর্ণনা দিয়ে তিনি বরং গণমাধ্যমকেই কাঠগড়ায় তুলেছেন।